রাতে শোয়ার পর বালিশে কান পাতলে নিজের হার্টবিট শুনতে পাই

0
6
শেয়ার করুন, সাথে থাকুন। সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে।

সমস্যাঃ আমার ২৩ বছর বয়স। আমার মা মারা যাবার পর থেকে আমি একরকম সমস্যায় ভুগছি। সব সময় মনে খারাপ চিন্তা আসত। মনে হতো আমি মরে যাব, বুকের মধ্যে চাপ চাপ লাগত, বুক ধড়ফড় করত। অনেক ডাক্তার দেখিয়েছি। হার্টের কোনো সমস্যা ধরা পড়েনি। কিন্তু আমার হার্টবিট এখন এত বেড়ে গেছে যে স্বাভাবিক অবস্থায় থাকলেও আমি আমার হার্টবিট শুনতে পাই। তখন ভয় পেয়ে ডাক্তারের কাছে যাই। উনি আমাকে betacap tr 40 নামে একটি ওষুধ দেন। আমি গত দুবছর এই ওষুধটি খাচ্ছি। রাতে শোয়ার পর বালিশে কান পাতলে নিজের হার্টবিট শুনতে পাই। আমার সমস্যাটা কি হার্টের নাকি মানসিক? রুবিনা আক্তার।

অধ্যাপক ডা. জ্যোতির্ময় রায়ঃ রুবিনা আক্তার প্রশ্ন করার জন্য ধন্যবাদ। আপনার সমস্যা হলো বুক ধড়ফড় করে, বুকে চাপ অনুভব হয়, সবসময় মৃত্যুভয় কাজ করে। আর এসব কারণে আপনার একটাই দুশ্চিন্তা যে, আপনার হার্টের অসুখ হলো কিনা? আমরা আপনার সমস্যাগুলোকে এভাবে ব্যাখ্যা করতে পারি- এগুলো শারীরিক কারণে যেমন হতে পারে তেমনি মানসিক কারণেও হতে পারে। যেমন, ধরুন আপনার বুক ধড়ফড় করে। মানুষ যখন দুশ্চিন্তাগ্রস্ত হয়, ভয় পায়, মনে অস্থিরতা অনুভব করে তখন শরীরের প্রতিটা অঙ্গে তার বিরূপ প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। এর ফলে হার্টবিট বাড়ে এবং বুকে চাপ অনুভব করাসহ অন্যান্য উপসর্গ দেখা দিতে পারে। আর দুশ্চিন্তাগ্রস্ত লোকের ঘুম সহজে আসে না। এমতাবস্থায় বিছানায় বাঁ কাত হয়ে শুয়ে থাকলে হার্টবিটের শব্দ বিছানা বালিশ দ্বারা পরিচালিত হয়ে কানে আসবে এটাই স্বাভাবিক। সুতরাং এতে ভয় পাওয়ার কিছু নেই। আমি মনে করি আপনার উপসর্গগুলো মানসিক কারণেই হচ্ছে। কারণ হিসেবে বলা যায়- প্রথমত, উপসর্গগুলো আপনার মা মারা যাবার পর (একটা মানসিক আঘাত) থেকে শুরু হয়েছে। আর দ্বিতীয়ত, অনেক ডাক্তার আপনি দেখিয়েছেন যারা বলেছেন আপনার হার্টের কোনো সমস্যা নেই। তাই আমার মনে হচ্ছে আপনি ‘অ্যাংজাইটি ডিজঅর্ডার’ নামক মানসিক রোগে ভুগছেন। এজন্য আপনি নিচের ওষুধগুলো ব্যবহার করতে পারেন:

Tab Esita 10mg সকালে ১টা করে (১ মাস)

Tab Telazine 1mg সকালে অর্ধেক ও সন্ধ্যায় অর্ধেক (১ মাস)

Tab Propanol 10mg সকালে ১টা এবং সন্ধ্যায় ১ টা (১ মাস)

Tab Rivotril 0.5mg ১ টা করে সন্ধ্যায় (১ মাস)।

আর সবচেয়ে ভালো হয় আপনার নিকটস্থ কোনো মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের মানসিক বহির্বিভাগে দেখালে। অথবা আপনার পরিচিত কোনো মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিলে। কারণ ওষুধের সাথে সাথে কিছু সাইকোলজিক্যাল পরামর্শ নেয়ারও প্রয়োজন আছে বলে আমি মনে করি।

পরামর্শ দিয়েছেন

অধ্যাপক ডা. জ্যোতির্ময় রায়

অধ্যাপক ও সাবেক বিভাগীয় প্রধান

মানসিক রোগ বিভাগ, রংপুর মেডিক্যাল কলেজ।

সূত্রঃ মনের খবর মাসিক ম্যাগাজিন, ৪র্থ বর্ষ, ৯ম সংখ্যায় প্রকাশিত।

স্বজনহারাদের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য পেতে দেখুন: কথা বলো কথা বলি
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও দেখুন: সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে  

“মনের খবর” ম্যাগাজিন পেতে কল করুন ০১৮ ৬৫ ৪৬ ৬৫ ৯৪
more

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here