মস্তিষ্কে মাদকের প্রভাব

0
97
মস্তিষ্কে মাদকের প্রভাব
শেয়ার করুন, সাথে থাকুন। সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে।

মাদকে আসক্ত হওয়ার জন্য মস্তিষ্ককে কি প্রভাবিত করে? প্রশ্নটি খুব সহজ হতে পারে কিন্তু উত্তরটা বোঝা কিছুটা জটিল। জৈবিক, মনস্তাত্ত্বিক এবং পরিবেশগত কারণগুলোর একটি শাখার উপর নির্ভর করে মাদকাসক্তির স্বক্রিয়তা।

আমরা সকলেই জানি যে, মস্তিষ্কে আনন্দের জন্য প্রাকৃতিক সেন্সর থাকে এবং সুখের প্রতিক্রিয়া হিসেবে তা কিছু হরমোন নিঃসরণ করে। এই হরমোনগুলো হলো ডোপামিন এবং সেরোটোনিন।

মস্তিষ্ক ডোপামিনকে তখনই ছেড়ে দেয় যখন কোনো ব্যক্তি কোনো আনন্দদায়ক মুহূর্তের মধ্য দিয়ে যায় বা এমন কিছু মনে করে যা তাদের মনকে সন্তুষ্ট করে। যেমন- তাদের প্রিয় ব্যক্তির সাথে দেখা করা, উপহার গ্রহণ, স্মৃতিচারণ করা বা কোনো ভাল কিছু নিয়ে ভাবা ইত্যাদি ঘটনাবলি উচ্চ মাত্রায় ডোপামিন নিঃসরণ করে।

এখানেই মনোবিজ্ঞান আমাদের সাথে খেলা করে। মস্তিষ্ক থেকে ডোপামিনের ভারী নিঃসরণ কোনো ব্যক্তিকে ইঙ্গিত করে যে মাদক গ্রহণ তার জন্য আনন্দ অনুভব করার অন্যতম প্রধান উপায় হতে পারে। তবে এটি হেলুসিনোজেনিক হতে পারে কারণ ব্যক্তি তার শারীরিক ক্ষতির বিষয়েও সচেতন।

মস্তিষ্কের এমন অংশ রয়েছে যা আমাদের অবচেতন মন নিয়ে কাজ করে। সুতরাং ওষুধের কারণে মস্তিষ্ক যখন উচ্চ ডোপামিন স্তর ছেড়ে দেয়, তখন আমাদের অবচেতন মন এটিকে লিপিবদ্ধ করে নেয়। এরপর মস্তিষ্ক এই ডোপামিনকে মুক্ত করার জন্য ওষুধগুলোর উপর নির্ভর করে। যা এই ওষুধগুলোর প্রতি আরো বেশি আগ্রহী হওয়ার জন্য মস্তিষ্ক উদ্দীপ্ত করে।

ওষুধের ডোজগুলো যত বেশি বৃদ্ধি পায় আমরা ততবেশি আনন্দিত বোধ করি। মস্তিষ্ক থেকে ডোপামিনের ভারী নিঃসরণ, আমাদের অবচেতন মন এবং নেশার ক্ষেত্রে একে অপরের দিকে ঝুঁকছে।

ইউফোরিয়া অনুভূতি বর্ণনা করার জন্য এমন একটি লেভেল যা কোনো ব্যক্তিকে তার অবচেতন মন দিয়ে ভাবতে বাধ্য করে। এই পর্যায়টি তাদের সচেতন মনের সাথে চিন্তা করতে দেয় না বরং আমাদের মনের অবচেতন দিকটি আরো দৃঢ়ভাবে প্রকাশ করে।

অ্যালকোহলেরও একইরকম প্রভাব থাকে, এ কারণেই যখন লোকেরা সাধারণত মাতাল হয় তখন তারা এমন কিছু কথা বলে বা এমন কিছু করে যা তারা স্বাভাবিক অবস্থায় কখনোও বলবে না বা করবে না অথবা বলা বা করার জন্য ভাবতেও পারেন না।

মস্তিষ্কে মাদকের প্রভাব

লোকেরা কেন মাদকাসক্ত হয় এটি এমন একটি প্রশ্ন যা আসক্ত নয় এমন ব্যক্তির তত্ত্বের সাথে অমীমাংসিত থেকে যায়। কারণ তাদের মন কিভাবে কাজ করে তার তুলনা করার জন্য সাধারণ কোনো উপায় নেই।

আমরা সবাই জানি যে, আমাদের দেহ হরমোনগুলোর উপর নির্ভরশীল এবং আমাদের মস্তিষ্ক বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই এটির নিয়ন্ত্রণে থাকে। দীর্ঘমেয়াদী ওষুধের কিছু প্রভাব এখানে দেয়া হল-

প্রচুর ওজন হ্রাস পায়। যোগাযোগের অসুবিধা হয়। কিছু জিনিস, স্থান, ঘটনা বিচার করার ক্ষেত্রে সমস্যা হয়। স্মৃতিশক্তি হ্রাস পায়। বোধগম্যতার অভাব দেখা দেয়। মস্তিষ্কের ক্ষতি হয় এবং ক্যান্সারও হতে পারে।

মাদকাসক্তির প্রধান কারণসমূহ

বর্তমানে বিশ্বের অর্ধেক জনসংখ্যা বিশ্বাস করে যে মাদকাসক্তি এক ধরনের মানসিক বা মস্তিষ্কের রোগ। অন্য অর্ধেক দাবি করেন এটি একটি বৈজ্ঞানিক কারণ যা মস্তিষ্কের হরমোন জনিত পরিবর্তনের কারণে মাদকদ্রব্য গ্রহণের আকাঙ্ক্ষা মনের মধ্যে ঘর করে। এই রোগের কারণটি কোনো ব্যক্তির বৈজ্ঞানিক এবং মানসিক পরিবর্তনের সাথে সম্পর্কিত।

উভয় তত্ত্ব এটি কেন ঘটে তার যৌক্তিক ব্যাখ্যা দেয়। এই প্রসঙ্গে অন্তর্নিহিত কারণগুলো নিম্নলিখিত কারণগুলোর সাথে পৃথক হতে পারে-

মানসিক এবং পরিবেশগত পরিবর্তন বা প্রভাব

আমাদের পারিপার্শ্বিকতা হলো আমরা প্রতিদিন যেসব বিষয়ের মুখোমুখি হই এবং এটি এমন একটি বিষয় যা আমাদের কার্যক্রম এবং ধারণার উপর একটি বিশাল প্রভাব ফেলে। সুতরাং মানসিকভাবে বিরক্ত করে এমন নেতিবাচক পরিবেশ যখন কোনো ব্যক্তিকে ঘিরে থাকে তখন তারা নিজেরাই সম্ভবত মাদক বেছে নেন বা অ্যালকোহল গ্রহণ করেন।

এই জাতীয় নেতিবাচক পারিপার্শ্বিকতার মধ্যে মানসিক আঘাত, অপব্যবহার, আর্থিক নিরাপত্তাহীনতা, হতাশা এবং আরো অনেক কিছু অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

বৈজ্ঞানিক কারণ

অ্যালকোহল, মাদক এবং তামাক মস্তিষ্কের হরমোনের নিঃসরণের উপর বিরূপ প্রভাব ফেলে। এই জাতীয় মাদকের ব্যবহার ডোপামিন এবং সেরোটোনিনকে প্রভাবিত করে। মাদকের আসক্তির জন্য যে কারণগুলো সাধারণভাবে দেখা যায়-

মাদকাসক্তের বৈজ্ঞানিক কারণ হলো ব্যক্তির বিষন্নতা ও মানষিক চাপ। স্ট্রেস, খারাপ সঙ্গের প্রভাব, প্রচন্ড মানসিক আঘাত, বাইপোলার ডিসঅর্ডার ইত্যাদি।

তাই বলা যায়, মাদকদ্রব্যে মানুষের কেন এত আসক্তি এই প্রশ্নটি এমন ব্যক্তির পক্ষে বোঝা সম্ভব নয় যে কখনো মাদক গ্রহণ করেনি বা এই নির্দিষ্ট বিষয়ে জ্ঞান রাখে না। মাদকাসক্তি নিরাময়ে মানসিক স্বাস্থ্যের ভূমিকা এক্ষেত্রে ব্যাপক এবং উপরোক্ত কারণগুলোতেও দৃষ্টি দেয়া উচিত।

শৈশবের মানসিক আঘাত, হতাশা, চাকরি হারানো, অর্থায়ন, পরীক্ষায় ব্যর্থ হওয়া বা প্রিয়জনের প্রস্থান এসব কেবল মাদক সেবনে প্ররোচিতই করে না, আত্মঘাতী চিন্তাভাবনা এবং মৃত্যুর কারণও হতে পারে। তবে সুসংবাদ হলো আপনি মানসিক চিকিৎসার মাধ্যমে এর বিরুদ্ধে লড়াই করতে পারেন এবং সুন্দর ও সুস্থ জীবন গড়ে তুলতে পারেন।

more

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here