শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় করণীয়

0
191

অ্যাসিস্ট্যান্ট কাউন্সেলিং সাইকোলজিস্ট

মানসিক স্বাস্থ্য হলো, মানুষের চিন্তা-চেতনা ও আবেগ-অনুভূতির সুষ্ঠু সমন্বয়। এই চিন্তা-চেতনা ও আবেগ-অনুভূতির সঠিক সমন্বয় সাধনের মাধ্যমেই একজন মানুষ তার ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক ও পেশাগত দায়িত্ব-কর্তব্য সঠিকভাবে সম্পাদন করে এবং পরস্পরের সাথে সুসম্পর্ক বজায় রেখে চলতে পারে।

এসব যোগ্যতা ও দক্ষতা অর্জনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের আদর্শ মানুষে পরিণত করার জন্যই মানসিক স্বাস্থ্যের উন্নয়ন অপরিহার্য। শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতির জন্য দায়ী সমস্যাগুলো হলো অ্যাকাডেমিক চাপ, শিক্ষার সামগ্রিক পরিবেশ, আর্থিক সংকট এবং ক্যারিয়ার দুশ্চিন্তা।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের প্রাণ হচ্ছে শিক্ষার্থী। শিক্ষার্থীর মনকে এমনভাবে গঠন করতে হবে যেন সে কোনোদিন ব্যর্থতায় ভেঙে না পড়ে এবং বিষণ্নতায় নিমজ্জিত না হয়ে বরং স্বপ্রেষিত হয়ে সে যেন নিজেই আজীবন ধরে রাখতে পারে নিজের কর্মোদ্যম ও মানসিক সুস্থতা।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্য নিশ্চিত করতে হলে নিচের বিষয়গুলো খেয়াল রাখা জরুরি :

  •  অ্যাকাডেমিক চাপ কোমলমতি শিক্ষার্থীদের মানসিক চাপ সৃষ্টি করে। শৈশব থেকেই শিশুদের মনে অতিরিক্ত বইয়ের চাপে পড়াশোনার প্রতি একধরনের ভীতি তৈরি হয়। তাই পড়াশোনাকে শিক্ষার্থীরা যেনো ভয় না পেয়ে আনন্দ নিয়ে করতে পারে সেজন্য পাঠ্যপুস্তক শিক্ষার্থীদের উপযোগী করে প্রস্তুত করতে হবে।
  •  শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্যের অনুকূলে রাখতে হবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের পরিবেশ। সবাইকে খেয়াল রাখতে হবে, শিক্ষার্থীরা যেন কোনোভাবেই শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন এবং বুলিংয়ের শিকার না হয়।
  •  শিক্ষক-শিক্ষার্থী পরস্পরের মধ্যে থাকতে হবে শ্রদ্ধা ও স্নেহের সম্পর্ক। শিক্ষক যেন কোনোভাবেই শিক্ষার্থীদের ভয়ের কারণ না হন।
  •  শিক্ষকগণ অত্যন্ত আগ্রহ নিয়ে শিক্ষার্থীদের কথা শুনবেন, যেন প্রত্যেক শিক্ষার্থী মনে করে তাকে শিক্ষক অনেক গুরুত্ব দিচ্ছেন। শিক্ষক কোনোভাবেই শিক্ষার্থীদের প্রতি বিরক্তিভাব প্রকাশ করবেন না।
  •  শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ায় ও পরীক্ষায় ভালো করার জন্য শিক্ষকগণ প্রতিনিয়ত উৎসাহ প্রদান করবেন। তাদেরকে বকাঝকা বা তিরস্কার এবং কোনোকিছুর ভয় না দেখিয়ে পাঠ্যবিষয়কে যতোটা সম্ভব আনন্দদায়ক ও সহজ করে বুঝিয়ে দিবেন।
  •  শিক্ষার্থীদের সর্বদা ইতিবাচক কথা বলতে হবে। কোনো শিক্ষার্থীকে তার চেয়ে অধিক যোগ্য কারোর সঙ্গে তুলনা করে অপমান না করে, যা পেরেছে তা যত ছোপটাই হোক বারবার উল্লেখ করে ধন্যবাদ দিবেন। শিক্ষার্থীদের কোনোভাবেই তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করা যাবে না; ডাকা যাবে না বিকৃত কোনো নামে।
  •  শিক্ষার্থীদের মনে স্বপ্ন জাগাবেন, সাহস যোগাবেন শিক্ষক। যেন তারা এমন মনোভাব নিয়ে বেয়ে ওঠে যে, ‘আমি অবশ্যই পারব’। অর্থাৎ শিক্ষকগণ শিক্ষার্থীদের মধ্যে আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলতে সাহায্য করবেন।
  •  ধর্ম-বর্ণ, ধনী-দরিদ্র নির্বিশেষে সকল শিক্ষার্থীকেই সমান গুরুত্ব দিবেন শিক্ষক। খেয়াল রাখবেন কোনো শিক্ষার্থী যেনো অর্থের অভাবে ঝরে না পড়ে এবং নিজেকে অবহেলিত না ভাবে।
  •  শিক্ষকগণ লেখাপড়ার পাশাপাশি সকল শিক্ষার্থীকে আগ্রহ অনুসারে কোনো না কোনো সহশিক্ষা কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করার সুযোগ করে দিবেন। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে নিয়মিত আয়োজন করতে হবে বিভিন্ন প্যারেড-পিটি ও খেলাধুলার।
  •  প্রত্যেক শিক্ষার্থীর অন্তরে শিক্ষক জাগিয়ে দিবেন দেশপ্রেম ও নৈতিক মূল্যবোধ।
  •  কোনো শিক্ষার্থীর আচরণ অস্বাভাবিক মনে হলে, শিক্ষক একান্তে ডেকে তার সাথে কথা বলবেন। আগ্রহ নিয়ে শুনবেন তার বিস্তারিত সমস্যা, প্রদান করবেন প্রয়োজনীয় পরামর্শ। বিষয়টি গোপনীয় হলে অবশ্যই গোপনীয়তা রক্ষা করবেন। প্রয়োজনে কথা বলবেন অন্য শিক্ষক ও তার অভিভাবকের সঙ্গে।
  •  শিক্ষক নিজে হয়ে উঠবেন বিশ্বস্ত, শিক্ষার্থীদের উপরও রাখবেন বিশ্বাস। শিক্ষার্থীরা যেনো সবকিছু মন খুলে তাদের শিক্ষকদের বলতে পারে।
  •  এছাড়াও উদ্ভ‚ত অবস্থার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য উনয়েনে যখন যা প্রয়োজন তা করবেন শিক্ষকগণ।
  •  শিক্ষার্থীদের মানসিক স্বাস্থ্য উন্নয়নে কাউন্সেলিং সেবা প্রদানের জন্য প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে অভিজ্ঞ মনোবিজ্ঞানী নিয়োগ দেয়াও জরুরি।

লিখেছেন,
মাহজাবীন আরা শান্তা
অ্যাসিস্ট্যান্ট কাউন্সেলিং সাইকোলজিস্ট

লেখকের অন্যান্য লেখা পড়তে ক্লিক করুন এখানে :

সূত্র : জানুয়ারি ২০২৩ সংখ্যা। এই সংখ্যাটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মানসিক স্বাস্থ্য সুরক্ষায় শিক্ষক, অভিভাবক, শিক্ষার্থী, শিক্ষানীতি অংশীজন থেকে শুরু সামাজিক অন্যান্য অংশীজনদের ভূমিকা ও দায়িত্ব, করণীয়, সমস্যা ও সম্ভাবনা তুলে ধরে বিশেষজ্ঞদের লেখা নিয়ে সাজানো হয়েছে।

  • আপনার কপি সংগ্রহের জন্য কল করুন : 01797296216, নিয়মিত পেতে গ্রাহক হতে চাইলে কল করুন : 01865466594 এই নাম্বারে।

/এসএস/মনেরখর/

Previous articleপাখির কিচিরমিচির ভালো রাখবে আপনার মানসিক স্বাস্থ্য
Next article‘আমি বাঁচতে চাই, নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে চাই’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here