দেহের ওপর মনস্তাত্ত্বিক এবং শারীরবৃত্তীয় প্রভাব ফেলে গাঁজা

দেহের ওপর মনস্তাত্ত্বিক এবং শারীরবৃত্তীয় প্রভাব ফেলে গাঁজা

আবেগের বশে কিংবা সঙ্গদোষে অনেকেই গাঁজা সেবন করে থাকেন। কিন্তু এই গাঁজা শরীরের জন্য অত্যন্ত মারাত্মক্য। মানব দেহের ওপর বিভিন্ন মনস্তাত্ত্বিক এবং শারীরবৃত্তীয় প্রভাব ফেলে এই গাঁজা।

বিজ্ঞানীরা গবেষণার মাধ্যমে জানতে পেরেছেন যে, গাঁজা সেবনের পরপরই ‘টিএইচস’ ফুসফুসের মধ্যে দিয়ে শোধিত হয়ে রক্তপ্রবাহের সাথে মিশে শরীরের বিভিন্ন অংশে তথা মস্তিষ্কেও প্রবাহিত হয়।

গাঁজা সেবনের কয়েক মিনিটের মধ্যেই সেবনকারী ব্যক্তির হৃত্‍কম্পন বেড়ে যায় এবং চোখের রক্ত প্রবাহের শিরাগুলি স্ফিত হয়, যার কারণে চোখ লাল হয়। হৃত্‍স্পন্দন স্বাভাবিকের (মিনিটে ৭০-৮০ বার) চেয়ে বেড়ে যায় কোন কোন সময় দ্বিগুণ হয়ে যায়।

গাঁজা যদি অন্য কোন মাদকদ্রব্যের সাথে নেয়া হয় তবে এর প্রভাব অনেক বেড়ে যায়। যত বেশি গাঁজা মিশ্রিত মাদক দিয়ে ধূমপান করা হবে – ততবেশি বিভ্রান্তিকর প্রতিক্রিয়া দেখা দিবে।

অল্প মাত্রায় সেবন করলেও সেবনকারীর মাঝে মাঝে স্বল্প সময়ের জন্য স্মৃতিভ্রম ঘটে। দীর্ঘদিন গাঁজা সেবন করলে বিশেষ করে মাঝে মাঝে অতিমাত্রায় সেবন করলে সেবনকারীর মধ্যে ‘মস্তিষ্ক বিকার’ কিংবা মনোবিকাররগ্রস্ততা দেখা দেয়, যা উন্মাদনার শামিল। ব্যক্তি ক্রমে কান্ডজ্ঞান হারিয়ে দৃষ্টি ও শ্রুতিগত হ্যালুসিনেশনে ভোগে। এমনকি নিজের পরিচিতি সম্পর্কে ধারণা হারিয়ে ফেলার মতো অবস্থার সৃষ্টি হয়।

এছাড়াও প্রজনন অক্ষমতা, হৃত্‍স্পন্দন বৃদ্ধিতে আতঙ্কগ্রস্ত হওয়া এবং দৃষ্টি ও সময় অনুধাবনে বিভ্রান্তিজনিত অস্থিরতা, মানসিক বৈকল্য ও অবসাদগ্রস্ততাও দেখা দেয় নিয়মিত গাঁজা সেবন করলে।

স্বজনহারাদের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য পেতে দেখুন: কথা বলো কথা বলি
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও দেখুন: সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে 

“মনের খবর” ম্যাগাজিন পেতে কল করুন ০১৮ ৬৫ ৪৬ ৬৫ ৯৪

 

No posts to display

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here