স্ট্রেস- ৩য় পর্ব: প্রকারভেদ

0
134

১ম পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন
২য় পর্ব পড়তে এখানে ক্লিক করুন
আমরা প্রায়ই বলি বা শুনি যে, আমি খুব স্ট্রেস এ আছি। আজ আমরা স্ট্রেস কত প্রকার সেটা নিয়ে একটু আলোচনা করব। প্রথমেই “The father of stress” Hans Selye এর মতে স্ট্রেস দুই প্রকারঃ সুখের স্ট্রেস আর দুঃখের স্ট্রেস। সুখের সময় যে স্ট্রেস হয় তাকে Eustress বলে। আর দুঃখের সময় যে স্ট্রেস হয় তাকে Distress বলে।
আরেক ভাবে ভাগ করা যায়। যেমনঃ প্রাকৃতিক ও মানব সৃষ্ট। প্রাকৃতিক হল ঝড়, ভুমিকম্প, বন্যাসহ আরও অনেক কিছু। মানব সৃষ্ট হল ট্রাফিক জ্যাম, আগুন লাগিয়ে দেওয়া ইত্যাদি।
অন্যভাবে ভাগ করা হয়েছে, যে Ordinary ও Extra Ordinary । Ordinary স্ট্রেস হল প্রত্যহ জীবনে ঘটে যাওয়া স্ট্রেস, যেমন; অফিসে যাওয়ার কষ্ট, অফিসে কাজের চাপ, বসের বকা, সংসারে টানাপোড়েন ইত্যাদি। Extra Ordinary স্ট্রেস হল সেই ধরনের স্ট্রেস যেটা স্বভাবত হয় না, কিন্তু যখন হয় জীবন হুমকির মুখে পড়ে যায়, মৃত্যুর আশংকা দেখা দেয়।
আবার অনেকে Exit স্ট্রেস ও  Entry স্ট্রেস হিসাবেও ভাগ করেছেন। Exit স্ট্রেস হল আমাদের জীবন থেকে কোনো কিছু চলে যাওয়ার ফলে যে স্ট্রেস হয়; যেমনঃ কারো মৃত্যু। Entry স্ট্রেস হল আমাদের জীবনে নতুন কারো আগমন ঘটলে যে স্ট্রেস দেখা যায়। যেমনঃ বিবাহ, বাচ্চার জন্ম হওয়া, নতুন চাকরিতে যোগ দেওয়া ইত্যাদি।
জীবনের কোন কোন মুহূর্তে কেমন স্ট্রেস বিরাজ করে সেটা নিয়ে সারা পৃথিবীতে গবেষণা করা হয়েছে ও স্ট্রেস -এর মুহূর্ত গুলো চিহিৃত করা হয়েছে।
stress table 1
এরকম ভাবে আরও অনেক স্ট্রেস এর মুহূর্ত চিহিৃত হয়েছে।
চলবে…


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here