সহজলভ্যতাই বাড়ায় মাদকাসক্তি

0
135

মানুষ কেন মাদক নেয়? এ নিয়ে সারা বিশ্বেই ব্যাপক গবেষণা হয়ে আসছে এবং এখনো হচ্ছে। জীনগত কারণ, মস্তিষ্কের নিউরোট্রান্সমিটারের ভারসাম্যে পরিবর্তন, দৈনন্দিন জীবনের মানসিক চাপ, খারাপ সঙ্গ এমন নানাবিধ কারণ বেরিয়ে আসছে গবেষণায়। কিন্তু এর মধ্যে অন্যতম আরেকটি কারণ মাদকদ্রব্যের সহজলভ্যতা।
‘সহজলভ্যতা’ বিষয়টি যে কোনো কিছুর অধিক ব্যবহার বা অপব্যবহারের অন্যতম প্রধান কারণ হিসেবেই বিবেচনা করা যায়। মোবাইল ফোনের বিষয়টিকেই আমরা উদাহরণ হিসেবে ধরতে পারি। অন্যের সঙ্গে কথা বলা বা আলাপচারিতার ইচ্ছা মানুষের সামাজিক বৈশিষ্ট্য। মোবাইল ফোনের আগের যুগে এ ইচ্ছার বাস্তবায়ন কঠিন ছিল। এমনকি মোবাইলের প্রাথমিক যুগেও যখন সেটের দাম নাগালের বাইরে ছিল এবং কল চার্জ প্রতি মিনিটে আসতো সাত টাকার মতো, তখনো অফুরান কথা বলার ইচ্ছাটাকে অনেকাংশেই নিয়ন্ত্রণ করতে হতো। কিন্তু যখন থেকেই ফোনে কথা বলাটা ‘সহজলভ্য’ হয়ে উঠলো – রাতভর বিনামূল্যে বা রাত-দিনে নামমাত্র মূল্যে কথা বলার সুযোগ এলো, তখন থেকেই মোবাইলে কথা বলার হার বাড়তে থাকলো। এরই মাঝে মোবাইল ফোনের সেটও কমদামে সহজলভ্য হয়ে উঠলো।
‘লেখক’ হওয়াটাও এখন সুলভ। আগে একটা লেখা নিয়ে গুটিকয় পত্রিকা অফিসে দিনের পর দিন ঘুরতে হতো; বই লিখে প্রকাশকের দ্বারে দ্বারে ধরনা দিতে হতো। এখন পত্রিকার সংখ্যাধিক্য এবং বিশেষত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সহজেই অধিক সংখ্যক পাঠকের কাছে পৌঁছানো যাচ্ছে বলে ‘লেখক’র সংখ্যাও বাড়ছে হু হু করে। আগে যেটা করার পরিকল্পনা হয়তো মনে মনে করা পর্যন্তই সীমাবদ্ধ ছিল, এখন সেটার বাস্তবায়ন খুবই সহজ। এসবের উপকারী-অপকারী দুই দিকই রয়েছে। যেটা বলতে চাচ্ছি, তা হচ্ছে – সহজলভ্যতা যে কোনো কিছুর ব্যবহার বাড়িয়ে দিতে পারে বা সুপ্ত ইচ্ছার বাস্তবায়ন ঘটাতে পারে। একই ঘটনা ঘটছে মাদকের ক্ষেত্রেও।
নিষিদ্ধ জিনিসের প্রতি মানুষের আকর্ষণ বরাবরের। আর মাদকের সাময়িক আনন্দদায়ী ক্ষমতাও এর উৎপাদনের প্রথম যুগ থেকেই বিদ্যমান। নিষিদ্ধ এই মাদকের আনন্দের সঙ্গে এদেশের মানুষের মেলবন্ধন ঘটিয়েছে এর সহজলভ্যতা। দিনে দিনে মাদকের সরবরাহ বাড়ছে, পাল্লা দিয়ে কমছে দাম।
আগে হয়তো অনেকটা দূরে গিয়ে, অনেক পরিশ্রমে মিলতো নেশার উপকরণ। এখন বাড়ির পাশেই অলিতে-গলিতে মাদক। কোথাও যেতেও হয় না- একটা ফোনই যথেষ্ট, বাড়িতে চলে আসে নেশাদ্রব্য। এখন মাদক মেলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান-কর্মক্ষেত্রেও।
বাংলাদেশে মাদকের এ সহজলভ্যতার অন্যতম কারণ সীমান্তপথে অবাধে মাদকের চোরাচালান। বাংলাদেশ-মিয়ানমারের ২৭২ কিলোমিটার সীমান্তের ৬৩ কিলোমিটারই জলসীমা। এ পথে প্রতিদিন অবাধে ঢুকছে হালের ক্রেজ ‘ইয়াবা’। পত্রিকার খবর অনুযায়ী, ইয়াবা চালানের প্রায় পুরোটাই আসছে মিয়ানমার থেকে। বাংলাদেশের বাজার ধরতে এবং রপ্তানি প্রক্রিয়া সহজ করার জন্য মিয়ানমারের সীমান্ত এলাকাতেই গড়ে উঠেছে ইয়াবা উৎপাদনের কারখানা।
কক্সবাজার, টেকনাফ হয়ে ইয়াবা আসছে চোরাচালানের এ দেশীয় সিন্ডিকেটের হাতে, সেখান থেকে ছড়াচ্ছে সারা দেশে। ইয়াবা ব্যবসায় জড়িতদের তালিকা প্রকাশিত হচ্ছে নিয়মিত, সীমান্ত এলাকাসহ এখানে-ওখানে ধরা পড়ছে ইয়াবার চালান। কিন্তু তবুও থেমে নেই মাদকব্যবসায়ীদের দৌরাত্ম্য। ভারতের সীমান্ত দিয়ে ঢুকছে ফেন্সিডিল, হেরোইন। গাঁজা, মদ তো উৎপাদন হচ্ছে দেশেই।
এ ছাড়া বাংলাদেশ হয়ে উঠেছে আন্তর্জাতিক মাদক পাচারের একটি রুট। এর পেছনে ভৌগোলিক কারণ যেমন রয়েছে, তেমনি রয়েছে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি আর আর্থসামাজিক অবস্থার দুর্বলতাও। অল্প সময়ে অধিক মুনাফার আশায় অপেক্ষাকৃত তরুণরা যুক্ত হচ্ছে এই সিন্ডিকেটের সঙ্গে।
গোয়েন্দা সংস্থার বরাতে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে দেখা যায়, বিভিন্ন দেশের মাদক ব্যবসায়ীরা মাল্টিপল ও ভ্রমণ ভিসায় এসে এ দেশে থেকে স্থানীয় মাদকব্যবসায়ীদের সঙ্গে যোগসাজশে মাদক ব্যবসা করছে।
সম্প্রতি চট্টগ্রাম বন্দরে জব্দ হওয়া বলিভিয়া থেকে আসা সূর্যমুখী তেলের চালানের নমুনায় তরল কোকেনের উপস্থিতির বিষয়টি মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়েছে। উচ্চ মূল্যের কারণে বাংলাদেশে মাদকদ্রব্য হিসেবে কোকেনের ব্যবহার তেমন নেই বলে ধারণা করা হচ্ছে। কিন্তু কলম্বিয়া, বলিভিয়া, মেক্সিকো, পেরুসহ দক্ষিণ আমেরিকান দেশগুলো থেকে উত্তর আমেরিকা ও পশ্চিম ইউরোপের দেশগুলোতে কোকেন পাচারের মধ্যবর্তী রুট হিসেবে ব্যবহৃত হচ্ছে বাংলাদেশ এবং এ কাজে আন্তর্জাতিক চক্রকে সহায়তা করেছে বাংলাদেশি ব্যবসায়ী। তবে, এ ধরণের পাচারের রুট হিসেবে ব্যবহৃত হতে হতে কোকেনও যে এদেশে ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়বে না, সে গ্যারান্টি কে দিতে পারে?
প্রথম দিকে ইয়াবাও ব্যয়বহুল মাদক হিসেবেই চিহ্নিত ছিল। কিন্তু এর বিস্তার ঠেকানো যায়নি। ব্যয়বহুল মাদকের নেশা ছড়িয়ে পড়লে তা স্বাস্থ্য-সমস্যার পাশাপাশি আর্থসামাজিক পরিস্থিতিকেও আরো বিপর্যস্ত করে তুলবে।
সে কারণে দেশের স্বার্থে মাদক-চক্রকে ধ্বংস করতে হবে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে আরো সক্রিয় ও কার্যকর ভূমিকা রাখতে হবে। মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরকে পর্যাপ্ত জনবলসহ আনুসঙ্গিক সুবিধাদি দিয়ে এটিকে মাদক প্রতিরোধে একটি কার্যকর প্রতিষ্ঠানে পরিণত করতে হবে। দেশের আনাচে কানাচে মাদকের সহজলভ্যতা কমাতে হবে। পাশাপাশি বাড়াতে হবে সামাজিক সচেতনতা।
ডা. মুনতাসীর মারুফ
মানসিক রোগ বিশেষজ্ঞ
ইমেইল- marufdmc@gmail.com


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা নিয়ে আইনগত বা অন্য কোনো ধরনের কোনো দায় নেবে না কর্তৃপক্ষ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here