দেশের ১৬ মেডিকেল কলেজে নেই মানসিক স্বাস্থ্যসেবা ইউনিট

0
6
দেশের ১৬ মেডিকেল কলেজে নেই মানসিক স্বাস্থ্যসেবা ইউনিট
শেয়ার করুন, সাথে থাকুন। সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে।

দেশের ৩৬টি সরকারি মেডিকেল কলেজের মাঝে ১৬টিতেই উপেক্ষিত মানসিক স্বাস্থ্যসেবা। একদিকে দেশে যখন বাড়ছে মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে থাকা মানুষের হার, তখন দেশের প্রায় অর্ধেকের বেশি মেডিকেল কলেজেই নেই প্রয়োজনীয় জনবল। সেইসঙ্গে দেশের ১৬টি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেই মানসিক স্বাস্থ্যসেবার জন্য আলাদা কোনো বিভাগ বা ইউনিট। রয়েছে মানসিক চিকিৎসা সেবার জন্য প্রয়োজনীয় জনবল সংকট।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এক্ষেত্রে মানসিক স্বাস্থ্যকে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবায় অন্তর্ভুক্ত করা ছাড়া অন্য কোনো উপায় নেই। এর জন্য মেডিকেল কলেজগুলোতে মানসিক বিভাগ গড়ে তুলতে হবে। দেশে ৩০টি সরকারি ও ৫৫টি বেসরকারি মেডিকেল কলেজ আছে। এগুলো রেফারেল সেন্টার হিসেবে ভূমিকা রাখতে পারে। যেখানে মেডিকেল কলেজ নেই সেখানে বিকল্প পদ্ধতিতে সেবার ব্যবস্থা করতে হবে।

মেডিকেল কলেজে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসাসেবার বর্তমান অবস্থা

দেশে সর্বপ্রথম ১৯৬০ সালে মনোরোগ বিভাগ প্রতিষ্ঠা হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এই হাসপাতালের ইনডোরে চিকিৎসা সেবা দেওয়া হয় ২১টি শয্যায়। তবে এখানে মনোরোগ বিভাগে বর্তমানে একজন অধ্যাপক থাকলেও নেই কোনো সহযোগী ও সহকারী অধ্যাপক। এই মেডিকেল কলেজে বর্তমানে একজন সহকারী রেজিস্টার ও রেজিস্টার কর্মরত আছেন।

১৯৬৮ সালে মনোরোগ বিভাগ প্রতিষ্ঠা হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। একজন সহযোগী অধ্যাপকসহ দু’জন মনোরোগবিদ এই বিভাগে আছেন বর্তমানে। তবে এখানে হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য নেই আলাদা কোনো শয্যা।

১৯৭৫ সালে মনোরোগ বিভাগ প্রতিষ্ঠা হয় চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এখানকার ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্যসেবার জন্য রয়েছে ৬০টি শয্যা। কিন্তু মাত্র একজন সহকারী অধ্যাপক দিয়ে পরিচালনা করা হয় হাসপাতালটির মনোরোগ বিভাগ।

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজে একজন সহযোগী অধ্যাপক, সহকারী অধ্যাপক ও সহকারী রেজিস্টারসহ তিনজন কর্মরত রয়েছেন। তবে রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেই কোনো অধ্যাপক। এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য আছে ১৫টি শয্যা।

১৯৭৮ সালে মনোরোগ বিভাগ শুরু করা হয় সিলেটের এম এ জি ওসমানি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এখানের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য ২৫টি শয্যা আছে। এই মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগে চারজন সহকারী অধ্যাপক ও একজন সহযোগী অধ্যাপক থাকলেও নেই কোনো অধ্যাপক।

১৯৮১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় রংপুর মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ। এখানে একজন সহকারী অধ্যাপকসহ দুইজন কর্মরত আছেন বর্তমানে। এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য আছে ১৬টি শয্যা।

১৯৮৭ সালে প্রতিষ্ঠিত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ। এই বিভাগ বর্তমানে পরিচালিত হয় শুধুমাত্র একজন সহকারী অধ্যাপক দিয়ে। এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য আছে ১২টি শয্যা।

১৯৮৭ সালেই প্রতিষ্ঠিত হয় বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ। এখানে বর্তমানে শুধুমাত্র একজন সহকারী অধ্যাপক কর্মরত আছেন। এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য রয়েছে ১২টি শয্যা।

১৯৯৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ। এখানে একজন অধ্যাপকসহ বর্তমানে আছে একজন জুনিয়র কনসালটেন্ট ও একজন রেজিস্টার। এই হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্যচিকিৎসার জন্য আছে ১৮টি শয্যা।

১৯৯৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগ। এখানে একজন সহকারী অধ্যাপক ও রেজিস্টারসহ দু’জন কর্মরত আছেন। এই হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য আছে ১২টি শয্যা।

১৯৯৯ সালেই প্রতিষ্ঠিত হয় দিনাজপুরের এম আবদুর রহিম মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ। এখানে একজন ইমার্জেন্সি মেডিকেল কর্মকর্তা কর্মরত আছেন বলে জানানো হলেও তিনি মনোরোগবিদ নন। এই হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য কোনো শয্যা নেই।

১৯৯৯ সালে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের শুরু করা হয় মনোরোগ বিভাগ। এখানে বর্তমানে কর্মরত আছেন একজন অধ্যাপক ও একজন সহযোগী অধ্যাপক। এখানে বিশেষ দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) হিসেবে আছেন একজন। তবে এই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য নেই কোনো শয্যা।

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগে বর্তমানে কর্মরত আছেন একজন সহযোগী অধ্যাপক ও একজন সহকারী অধ্যাপক। একজন মেডিকেল অফিসার এখানে কর্মরত দেখানো হলেও তিনি মনোরোগবিদ নন। এই হাসপাতালের ইনডোরেও মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য নেই কোনো শয্যার ব্যবস্থা।

২০১৬ সালে পাবনা মেডিকেল কলেজ ও সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে মনোরোগ বিভাগ শুরু করা হয়। পাবনা মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ পরিচালিত হয় দু’জন সহকারী অধ্যাপক দিয়ে। অন্যদিকে, সিরাজগঞ্জ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ পরিচালিত হয় মাত্র একজন সহকারী অধ্যাপক দিয়ে। ২০১৬ সালেই গাজীপুরের শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজে শুরু করা হয় মনোরোগ বিভাগ। এখানেও একজন সহকারী অধ্যাপক দিয়ে মনোরোগ বিভাগ পরিচালনা করা হয়। তবে এই তিন হাসপাতালের ইনডোরে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য আলাদা কোনো শয্যা বরাদ্দ নেই।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগ পরিচালনা করা হয় একজন মেডিকেল অফিসারের মাধ্যমে। কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগও পরিচালনা করা হয় শুধুমাত্র একজন ব্যক্তি দিয়ে। এই দুই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ইনডোরেই মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসার জন্য কোনো শয্যা বরাদ্দ নেই। এছাড়া মুগদা মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগও পরিচালনা করা হয় একজন বিশেষজ্ঞ দিয়ে।

শুধুমাত্র মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই নয়, রাজধানীর জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসা ইনস্টিটিউটেও জনবল অপ্রতুল। এখানে সাতজন অধ্যাপক থাকার কথা থাকলেও বর্তমানে মাত্র একজন দায়িত্বরত আছেন। এছাড়া এখানে সাতজন সহযোগী অধ্যাপক রয়েছেন। আর সহকারী অধ্যাপক হিসেবে এখানে সাতজন কর্মরত থাকলেও সাতজনের পদ এখনও খালি।

যেসব মেডিকেল কলেজে নেই মানসিক স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ বা ইউনিট

চাঁদপুর মেডিকেল কলেজ, নেত্রকোনা মেডিকেল কলেজ, যশোর মেডিকেল কলেজ, কর্নেল মালেক মেডিকেল কলেজ, কুষ্টিয়া মেডিকেল কলেজ, নওগাঁ মেডিকেল কলেজ, মাগুরা মেডিকেল কলেজ, গোপালগঞ্জের শেখ সায়েরা মেডিকেল কলেজ, সাতক্ষীরা মেডিকেল কলেজ, নোয়াখালী আবদুল মালেক মেডিকেল কলেজ, টাঙ্গাইল শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, রাঙ্গামাটি মেডিকেল কলেজ, পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ, হবিগঞ্জ শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ, নীলফামারী মেডিকেল কলেজ ও জামালপুর শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজে মানসিক স্বাস্থ্যসেবা বিভাগ বা ইউনিট নেই।

সুত্রঃ ইন্টারনেট

স্বজনহারাদের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য পেতে দেখুন: কথা বলো কথা বলি
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও দেখুন: সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে 

“মনের খবর” ম্যাগাজিন পেতে কল করুন ০১৮ ৬৫ ৪৬ ৬৫ ৯৪
more

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here