ইইউ নিয়ে গণভোটের কারণে মানসিক স্বাস্থ্য সংকট!

ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে গণভোটের মাধ্যমে ব্রিটেন নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়ায় বিভিন্ন ক্ষেত্রে ইউরোপীয়দের কাজের ক্ষেত্র সংকুচিত হয়েছে। যার কারণে ব্রিটেনে বসবাসরত ইউরোপের অন্যান্য দেশের লোকজন ভুগছে এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের শংকায়। একই সাথে তাদের মধ্যে আরেকটি আশংকা তৈরি হয়েছে, অতীত ইউরোপের জাতিগত দ্বন্দ্ব আবার পুনরোজ্জীবিত হয় কিনা সে প্রসঙ্গে। বর্তমানে সকলের মধ্যে যা একটি অন্যতম আলোচনার বিষয়।
এসব শংকা ইউরোপীয়দের ব্যক্তিগত জীবনেও প্রভাব ফেলছে। সু-সম্পর্কগুলো অবিশ্বাস ও সন্দেহে পরিণত হচ্ছে। যার প্রভাব দেখা যাচ্ছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে অতীত বন্ধুদের মাঝে অসহিষ্ণু আচরণে।
যে উগ্র জাতীয়তাবাদ ইউরোপকে ধ্বংসের মুখে ঠেলে দিয়ে কোটি মানুষের প্রাণ কেড়ে নিয়েছিল তার পুনরাবৃত্তি ঠেকানোর উদ্দেশ্যেই মূলত ইউরোপীয় ইউনিয়নের প্রতিষ্ঠা। কিন্তু ব্রিটেন সেখান থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়ার প্রভাব আবারো ইউরোপীয়দের উগ্র জাতীয়তাবাদের দিকে ঠেলে দিতে পারে বলে মনে করছেন অনেকে। যার ফলে নষ্ট হতে পারে ইউরোপের পারষ্পরিক শান্তি প্রক্রিয়া।
এছাড়াও ব্রিটেনে ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকা না থাকা নিয়ে ভোটের ব্যবধান খুবই অল্প। যা খোদ ব্রিটিশ নাগরিকদের মধ্যে পারষ্পরিক আস্থার সংকট তৈরি করতে পারে। কারণ এটা ভুলে গেলে চলবে না যে ইউরোপীয় ইউনিয়নে থাকার পক্ষে ভোটদাতার সংখ্যাও নেয়ায়েত কম নয়।
ইউরোপের সামনে কি ঘটতে যাচ্ছে সেটি নিয়ে আলোচনা সমালোচনা দ্বিধা বা সংশয় থাকলেও এখানে একটি বিষয় নিশ্চিতভাবে বলা যায় যে, ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকে ব্রিটেন নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয়ার ফলে চাকুরির অনিশ্চয়তা, উগ্র জাতীয়তাবাদ ভীতি ইত্যাদি বিষয়গুলো ইউরোপকে এক নতুন মানসিক সঙ্কটের মুখে ফেলেছে।
তথ্যসুত্র- দ্যা গার্ডিয়ান
আন্তর্জাতিক ডেস্ক
মনেরখবর.কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here