মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু

Home সংবাদ জাতীয় শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

মনের খবর.কমের পাঠকদের জন্য থাকছে দেশের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগের বিস্তারিত তথ্য। প্রত্যেক প্রতিবেদনে থাকবে একটি করে টেবিল। টেবিলে বিভাগের লোকবল, সেবা ইত্যাদি সংবলিত প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য থাকবে। ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজকের পর্বে থাকছে শের-ই-বাংলা এ কে ফজলুল মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ।

আব্দুল বারী। বাড়ি বরিশালে। বয়স ২০’র ওপরে। সব সময়ে তার মেজাজ থাকে খিটখিটে। অনেক সময় রেগে গিয়ে মারতে যান পরিবারের সদস্যদের। এমনকি মাঝে মাঝে প্রতিবেশীদের ওপর চড়াও হন। আব্দুল বারী এমন আচরণ দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়ায় তার পিতা-মাতার। ছেলের চিকিৎসা করাতে একদিন তাকে নিয়ে আসা হয় বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. তপন কুমার সাহার তত্ত্বাবধানে ছিলো বারী। নিয়মিত চিকিৎসা নেয়ার পর এখন সে পুরোপুরি ‍সুস্থ।

এরকম বিভিন্ন মানসিক রোগীকে নিয়মিতভাবে সেবা দেয় বরিশালের শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগ। হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগের সেবাসহ বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য নিচে তুলে ধরা হলো:

পরিচিতি
শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ বরিশাল জেলায় অবস্থিত। এটি ১৯৬৯ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। বরিশাল শহরের দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থিত এ প্রতিষ্ঠানটি বিশাল জায়গা জুড়ে নির্মাণ করা হয়েছে। এখানে কলেজের হাসপাতালে ১২শ রোগীর জন্য বেডের ব্যবস্থা রয়েছে। এখানে প্রতি বছর ১৮০ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হন।

লোকবল
হাসপাতালটির মানসিক রোগ বিভাগে চাকুরিরত আছেন ৬ জন। তাদের একজন বিভাগের সহকারী অধ্যাপক। নার্স কাজ করেন ৫ জন।

পদ খালি
এই কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের সহকারী ও সহযোগী অধ্যাপকের দুইটি পদ খালি আছে। এছাড়াও দুজন সহকারী রেজিস্টারের পদ খালি আছে।

অন্তর্বিভাগ
শেরে-ই-বাংলা একে ফজলুল হক মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগে অন্তর্বিভাগে নারীদের ও পুরুষদের জন্য যথাক্রমে ৫ ও ১০ টি নিয়ে মোট ১৫টি বেডের ব্যবস্থা আছে। ৩০ টাকা দিয়ে অন্তর্বিভাগে মানসিক রোগী ভর্তি করা হয়।

বহির্বিভাগ
বহির্বিভাগে ১০ টাকা টিকেট ফিতে রোগী দেখা হয়। শুক্রবার সরকারি ছুটি ছাড়া বাকি ছয়দিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত চলে রোগী দেখার কার্যক্রম। প্রতিদিন গড়ে ৫০ থেকে ৬০ জন আসেন এখানে মানসিক চিকিৎসা সেবা পেতে।

জরুরি সেবা
এ বিভাগে জরুরি সেবা চালু আছে।

সাইকোথেরাপি (কাউন্সেলিং)
মানসিক রোগীদের স্বাস্থ্য সেবার হিসেবে এখানে কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করা হয়। বিভাগের শিক্ষক এ সেবা দিয়ে থাকেন। বিভিন্ন বিভাগ থেকে রেফার্ড রোগীদেরও শিক্ষকরা কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করে থাকেন।

শিক্ষা কার্যক্রম
পাঁচ বৎসর মেয়াদী শিক্ষা কার্যক্রম সাফল্যজনকভাবে শেষ করে শিক্ষার্থীরা চিকিৎসাশাস্ত্রে এমবিবিএস স্নাতক ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়। এ কলেজে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিভিন্ন কোর্স রয়েছে। কিন্তু এখানে অর্থাৎ মানসিক রোগ বিভাগে কোনো পোস্ট গ্রেজুয়েট ডিগ্রি চালু নাই।
এছাড়াও বিভাগটি মাঝে মাঝে বিভিন্ন সেমিনারের আয়োজন করে থাকে এই বিভাগ। এবং বিভিন্ন সময় কনফারেন্স ও কর্মশালার আয়োজন করে থাকে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল থেকে আগত শিক্ষার্থীদেরও ট্রেনিং করানো হয়ে থাকে। গবেষণার কাজ ব্যক্তিগতভাবে করা হয়।

bmc_table
জাহিদ হাসান
প্রতিবেদক, মনেরখবর.কম

এ সম্পর্কিত অন্য লেখার লিংক-

ঢামেকের মানসিক রোগ বিভাগ

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে কীভাবে পাবেন মানসিক রোগের সেবা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া-মনোরোগ বিভাগ

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগবিভাগের সেবাতথ্য

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ মানসিক রোগ বিভাগ<

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

মানসিক রোগ চিকিৎসার ক্ষেত্রে স্টিগমা সবচেয়ে বড় বাধা

মানসিক রোগ চিকিৎসার ক্ষেত্রে স্টিগমা সবচেয়ে বড় বাধা। সর্বশেষ জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য জরিপে বিভিন্ন প্রশ্নের প্রেক্ষিতে এই স্টিগমার পরিমান ৩৮-৯৮% পর্যন্ত দেখা গেছে। ২০১৯...

ইম্পোস্টার সিনড্রোম: নিজেকে অযোগ্য মনে করার রোগ

ইম্পোস্টার সিনড্রোম হলো এমন এক ধরণের মানসিক অবস্থা যে একজন মানুষ নিজের যোগ্যতা বা অর্জনকে সন্দেহের চোখে দেখে ও নিজেকে অযোগ্য মনে করে। মনে...

আমার কোন কিছু খেয়াল থাকে না!

সমস্যা: আমার নাম ছাইম আহাম্মেদ। আমি অনার্স ৩য় বর্ষের ছাত্র। আমার সমস্যাটি হচ্ছে, আমি কিছুই মনে রাখতে পারি নাহ। ধরুন, এখন ১০ মিনিট পড়লাম...

স্ট্রেস থেকে মুক্তি পেতে যা করতে পারেন

অফিস থেকে বাড়ি, সব জায়গায় কম-বেশি রয়েছে কাজের চাপ। অফিসে বসের ধমক, বাড়িতে রোজকার ঘরোয়া কাজ, জীবন যেন ষোলো আনাই অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। আর...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন