মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home সংবাদ জাতীয় ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ মানসিক রোগ বিভাগ

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ মানসিক রোগ বিভাগ

মনের খবর.কমের পাঠকদের জন্য থাকছে দেশের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগের বিস্তারিত তথ্য। প্রত্যেক প্রতিবেদনে থাকবে একটি করে টেবিল। টেবিলে বিভাগের লোকবল, সেবা ইত্যাদি সংবলিত প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য থাকবে। ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজকের পর্বে থাকছে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ।

পরিচিতি
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ ফরিদপুর শহরে অবস্থিত। ১৯৯২ সালে এটি প্রতিষ্ঠিত হয়। তবে এখনো স্থায়ী ক্যাম্পাস নেই সরকারি এ মেডিকেল কলেজের। এই ২৩ বছর পর্যন্ত অস্থায়ী ক্যাম্পাসে কার্যক্রম পরিচালনা করে আসছে। অস্থায়ী ভবন ফরিপুর জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের পাশে অবস্থিত। ৫শ শয্যাবিশিষ্ট হাসপাতালের আয়তন নিয়ে কলেজটির নতুন ও স্থায়ী ক্যাম্পাস তৈরির কাজ চলছে।

Faridpur_24.03.2015

লোকবল
ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগে চাকুরিরত আছেন মাত্র ১ জন। একজন শিক্ষকই বিভাগের দায়িত্বে আছেন। তাছাড়া এই বিভাগে কোনো প্রকার মেডিকেল অফিসার বা নার্স নেই।

বহির্বিভাগ
বহির্বিভাগে ১০ টাকা টিকেট ফিতে রোগী দেখা হয়। সপ্তাহে দুই দিন রোববার ও মঙ্গলবার সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত চলে রোগী দেখার কার্যক্রম।

অন্তর্বিভাগ
অন্তর্বিভাগে রোগী ভর্তির ক্ষেত্রে ফি বাবদ লাগে মাত্র ৩০ টাকা। এই বিভাগে নারী ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক ওয়ার্ডের ব্যবস্থা রয়েছে। নারীদের জন্য ৫টি ও পুরুষদের ৭টি নিয়ে মোট ১২টি বেড রয়েছে। অন্তর্বিভাগের জন্য কোনো নার্স নেই। অন্তর্বিভাগের মানসিক রোগীদের কাউন্সেলিং বা সাইকোথেরাপি সেবা দেয়া হয়।

জরুরি সেবা
এ বিভাগে রোগীদের জন্য জরুরি সেবা চালু নেই।

সাইকোথেরাপি (কাউন্সিলিং)
মানসিক রোগীদের স্বাস্থ্য সেবার পাশাপাশি সাইকোথেরাপিও দেয়া হয়ে থাকে। বিভাগে প্রশিক্ষণরত শিক্ষার্থীদের সাথে বিভাগের শিক্ষক সহকারী অধ্যাপক নূর আহমেদ গিয়াসউদ্দীন কাউন্সেলিং বা সাইকোথেরাপি দিয়ে থাকেন।

শিক্ষা কার্যক্রম
এ মেডিকেল কলেজ থেকে পাঁচ বৎসর মেয়াদী শিক্ষা কার্যক্রম শেষ করে শিক্ষার্থীরা এমবিবিএস ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়। এ কলেজে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিভিন্ন কোর্স রয়েছে। তবে, কলেজের মানসিক রোগ বিভাগ থেকে কোনো পোস্ট গ্রাজুয়েট ডিগ্রি দেয়া হয় না।

বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা নূর আহমেদ গিয়াসউদ্দীন জানান, প্রতি মাসে একবার করে বিভাগটি একটি প্রেজেন্টেশনের আয়োজন করা হয়। রোগ, রোগী সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করেন বিভাগের শিক্ষক। রোগীসহ এদের অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধিতেও এখানে বিভিন্ন বিষয় আলোচনা করা হয়।

এছাড়া বিভাগটি মাঝে মাঝে বিভিন্ন সেমিনার, কনফারেন্স ও কর্মশালার আয়োজন করে থাকে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল থেকে আগত শিক্ষার্থীদেরও ট্রেনিং করানো হয়ে থাকে। এখানে গবেষণার কাজ সাধারণত ব্যক্তিগত উদ্যোগে হয়ে থাকে।

fmc_24.03.2015
মো. জাহিদ হাসান
প্রতিবেদ, মনেরখবর.কম

এ সম্পর্কিত অন্য লেখার লিংক-

ঢামেকের মানসিক রোগ বিভাগ

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে কীভাবে পাবেন মানসিক রোগের সেবা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া-মনোরোগ বিভাগ

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগবিভাগের সেবাতথ্য

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

 
 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

আশাবাদী মনোভাব দীর্ঘায়ু প্রদান করে

আশাবাদী মনোভাব মানুষকে বাঁচার অনুপ্রেরণা যোগায়। অনেক কঠিন পরিস্থিতিতেও মনের জোর বজায় রাখে। বিপদে ধৈর্য প্রদান করে। সম্প্রতি গবেষকগণ এই দাবি করেছেন যে একজন আশাবাদী...

কারো সাথে ঠিকমতো কথা বলতে পারি না

সমস্যা: আমার বয়স ২৭ বছর। আমি ফ্রিল্যান্সিং কাজের সাথে যুক্ত আছি। আমি খুবই কনজারভেটিভ ফ্যামিলিতে বড় হয়েছি। বর্তমানে আমার কিছু সমস্যা হচ্ছে। কারো সাথে...

করোনা মহামারি ও নয়া স্বাভাবিকতা নিয়ে মনের খবর অক্টোবর সংখ্যা প্রকাশিত

দেশের অন্যতম বহুল পঠিত মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক মাসিক ম্যাগাজিন মনের খবর এর অক্টোবর সংখ্যা। অন্যান্য সংখ্যার মত এবারের সংখ্যাটিও একটি বিশেষ বিষয়ের উপর প্রাধান্য...

ধর্ম এবং মানসিক স্বাস্থ্যের যোগসূত্র

অনেকেই মনে করেন ধর্মীয় বিধি বিধান এবং মানসিক স্বাস্থ্যের মাঝে একটি গভীর সম্পর্ক রয়েছে এবং বিশেষ করে যারা ধর্মীয় জীবন যাপন করেন তারা উন্নত...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন