মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home সংবাদ জাতীয় জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া-মনোরোগ বিভাগ

জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া-মনোরোগ বিভাগ

মনের খবর.কমের পাঠকদের জন্য থাকছে দেশের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগের বিস্তারিত তথ্য। প্রত্যেক প্রতিবেদনে থাকবে একটি করে টেবিল। টেবিলে বিভাগের লোকবল, সেবা ইত্যাদি সংবলিত প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য থাকবে। ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজকের পর্বে থাকছে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মনোরোগ বিভাগ।

মানিক ও রতন। দুই ভাই। বাস্তবতা থেকে অনেক দূরে সরে গিয়েছিলো তারা। অবাস্তব অনেক কিছুকে বাস্তব মনে হতো তাদের। মানসিক রোগ সিজোফ্রেনিয়ায় ভুগছে তারা।

bmc_

নিয়মিত চিকিৎসা নেয়ায় ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছে তারা। বগুড়ার এ দুই ভাই চিকিৎসা নিচ্ছে বগুড়ার শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

মানিক ও রতনের মতো বিভিন্ন মানসিক সমস্যা ভোগা ব্যক্তিদের নিয়মিত চিকিৎসা দিয়ে যাচ্ছে সরকারি এ চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানটির মানসিক রোগ বিভাগ। বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ডা. মো. আবু তাহের জানান, বহির্বিভাগে রোগী দেখার সময় এ ধরনের অনেক মানসিক রোগী দেখে থাকেন তিনি।

কীভাবে মানসিক রোগীরা বগুড়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মনোরোগ বিভাগে সেবা পেতে পারেন তাসহ, বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য নিচে তুলে ধরা হলো:

পরিচিতি:
শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল বাংলাদেশের একটি সরকারি হাসপাতাল। এটি বগুড়া শহরে অবস্থিত। প্রতিষ্ঠানটি ১৯৯২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

লোকবল
হাসপাতালটির মানসিক রোগ বিভাগে চাকুরিরত আছেন ৫ জন। এদের দু’জন বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক। একজন মেডিকেল অফিসার ও ২ জন নার্স।

অন্তর্বিভাগ
এই বিভাগে নারী ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক ওয়ার্ডের ব্যবস্থা রয়েছে। নারীদের জন্য ৫টি ও পুরুষদের ৭টি নিয়ে মোট ১২টি বেড রয়েছে। অন্তর্বিভাগের ২জন নার্স নিয়োজিত আছেন। অন্তর্বিভাগের মানসিক রোগীদের কাউন্সেলিং বা সাইকোথেরাপি সেবা দেয়া হয়।

বহির্বিভাগ
এই বিভাগে শুধু একটি সেবা চালু আছে আর তা হলো বহির্বিভাগ সেবা। বহির্বিভাগে ১০ টাকা টিকেট ফিতে রোগী দেখা হয়। শুক্রবার সরকারি ছুটি ছাড়া বাকি ছয়দিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত চলে রোগী দেখার কার্যক্রম। এখানে কোনো জরুরি সেবা চালু নেই।

পদ খালি
বগুড়া মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগের বিভিন্ন পদ যেমন ১ জন অধ্যাপক, ১জন সহযোগী অধ্যাপক ও ২ জন সহকারী অধ্যাপক ও ১ জন মেডিকেল অফিসারের পদ খালি রয়েছে।

সাইকোথেরাপি (কাউন্সেলিং)
মানসিক রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা হিসেবে এখানে কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করা হয়। বিভাগের শিক্ষকরা সরাসরি এ সেবা দিয়ে থাকেন। বিভিন্ন বিভাগ থেকে রেফার্ড রোগীদেরও শিক্ষকরা কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করে থাকেন। এছাড়া বিভাগের প্রশিক্ষণরত শিক্ষার্থীরাও এ সেবা কাজে নিয়োজিত আছেন।

শিক্ষা কার্যক্রম
পাঁচ বৎসর মেয়াদী শিক্ষা কার্যক্রম সাফল্যজনকভাবে শেষ করে শিক্ষার্থীরা চিকিৎসাশাস্ত্রে এমবিবিএস স্নাতক ডিগ্রি প্রাপ্ত হয়। এ কলেজে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিভিন্ন কোর্স রয়েছে। তবে মনোরোগ বিভাগে কোনো পোস্ট গ্রেজুয়েট ডিগ্রি চালু নাই।

বিভিন্ন সময় এই বিভাগ সেমিনারের মাধ্যমে প্রেজেন্টেশনের আয়োজন করে থাকেন। যেখানে রোগ, রোগী সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় উপস্থাপন করেন বিভাগের শিক্ষক। রোগীসহ এদের অভিভাবকদের সচেতনতা বৃদ্ধিতেও এখানে বিভিন্ন বিষয় আলোকপাত করা হয়।

এছাড়া বিভাগটি মাঝে মাঝে বিভিন্ন কনফারেন্স ও কর্মশালার আয়োজন করে থাকে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল থেকে আগত শিক্ষার্থীদেরও ট্রেনিং করানো হয়ে থাকে। এখানে গবেষণার কাজ সাধারণত ব্যক্তিগত উদ্যোগে হয়ে থাকে।
rmc_15.03.2015

মো. জাহিদ হাসান
প্রতিবেদক, মনের খবর.কম

এ সম্পর্কিত অন্য লেখার লিংক-

ঢামেকের মানসিক রোগ বিভাগ

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে কীভাবে পাবেন মানসিক রোগের সেবা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগবিভাগের সেবাতথ্য

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ মানসিক রোগ বিভাগ

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

খুশির মেজাজে দুশ্চিন্তাকে বিদায় জানান

করোনা আবহে স্বাভাবিক পরিবেশ এখন এক মরিচিকার নাম। কিভাবে এই অসুস্থ পরিবেশেও হাসি খুশি মেজাজে থেকে দুশ্চিন্তা মুক্ত থাকা যায় সে সম্পর্কে কিছু কৌশল...

বিবাহ বিচ্ছেদের কিছু ভালো দিকও রয়েছে

সব সময় বিবাহ বিচ্ছেদ আমাদের মনে নেতিবাচক একটি অনুভূতি সৃষ্টি করে। কিন্তু এর কিছু ইতিবাচক বা ভালো দিকও রয়েছে। অনেক ক্ষেত্রেই এটা সত্যি যে বিবাহ...

সুস্থ চিন্তার বিকাশে সুস্থ মনের ভূমিকা

মহামারী শুধু আমাদের শরীরের উপরই নয়, মনের উপরেও প্রভাব বিস্তার করেছে। এই অসুস্থ অবস্থায় ভালো কিছু ভাবতে এবং করতে এই দুস্প্রভাব কাটিয়ে মনকে সুস্থ...

শিশুদের মনোবল বাড়ানোর কিছু সহজ উপায়

বর্তমান বিশ্ব প্রতিযোগিতার বিশ্ব। সবার মাঝে দিন দিন এই প্রতিযোগিতা,চাপ,ব্যস্ততা বেড়েই চলেছে। আর এই প্রতিযোগিতাময় বিশ্বের সব থেকে বিরূপ প্রভাব পড়ছে শিশুদের মনের উপর।...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন