মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home সংবাদ জাতীয় সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

মনের খবর.কমের পাঠকদের জন্য থাকছে দেশের মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের মনোরোগ বিভাগের বিস্তারিত তথ্য। প্রত্যেক প্রতিবেদনে থাকবে একটি করে টেবিল। টেবিলে বিভাগের লোকবল, সেবা ইত্যাদি সংবলিত প্রয়োজনীয় বিভিন্ন তথ্য থাকবে। ধারাবাহিক প্রতিবেদনের আজকের পর্বে থাকছে এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ।

রুম্মান আহমেদ চৌধুরী। বয়স প্রায় ২২। সিলেটের বাসিন্দা। তার ভাষ্য, মোবাইল অপারেটর কোম্পানি বাংলালিংকে কর্মরত। প্রায়ই বিভিন্ন হাসপাতালে রক্ত নিয়ে থাকেন।

SYLHET MEDICAL 25.02

আসলে তিনি কোনো চাকুরিই করেন না। আর রক্ত নেয়া যেন তার নেশা। এজন্য তিনি চিকিৎসকের দেয়া প্রেসক্রিপশন ঘষামাঝা করে থাকেন। প্রেসক্রিপশনে এমনভাবে অক্ষর মুছে দিয়ে নতুন করে অক্ষর জুড়ে দেন যাতে ডাক্তার তাকে রক্ত নেয়ার পরামর্শ দেন। আসলে সে এক ধরনের মানসিক রোগী।

একদিন রেফার্ড হয়ে সে আসেন এম.এ.জি সিলেটের ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগে। মানসিক স্বাস্থ্য সেবা প্রদানের মাধ্যমে তিনি এখন সম্পূর্ণ সুস্থ্য। বিভাগ প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক ডা. আর কে এস রয়েলের তত্ত্বাবধানে ছিলো সে।

সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বহির্বিভাগে এমন করে প্রতিদিন ৪৫ থেকে ৫০ জন মানসিক রোগী আসেন।

কীভাবে মানসিক রোগীরা সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগে সেবা পেতে পারেন তাসহ, বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্য নিচে তুলে ধরা হলো:

পরিচিতি
এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ(সিলেট মেডিকেল কলেজ)বাংলাদেশের বিভাগীয় শহর সিলেটে অবস্থিত একটি সরকারি মেডিকেল কলেজ। এটি ১৯৬২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় যা বর্তমানে বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় চিকিৎসাবিজ্ঞান বিষয়ক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। কলেজটি সিলেট শহরের উত্তর-পূর্বে কলেজশাহ এলাকায় অবস্থিত। পূর্বে কলেজটির নাম ছিল সিলেট মেডিকেল কলেজ। ১৯৮৬ সালে নাম পরিবর্তন করে রাখা হয় মুহাম্মাদ আতাউল গণি ওসমানী মেডিকেল কলেজ, যা সংক্ষেপে এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ নামে পরিচিত।১৯৭৮ সালে চালু হয় মানসিক রোগ বিভাগ।

জনবল
হাসপাতালটির মানসিক রোগ বিভাগে চাকুরিরত আছেন ১০ জন। এদের দুজন বিভাগের শিক্ষক। একজন সহকারি একজন সহযোগী। ১ জন সহকারী রেজিস্টার্ড, ৩ জন ৪র্থ শ্রেণির কর্মচারী, ৩জন নার্স ও ১ জন অফিস সহকারী কাজ করেন। বিভাগে সহযোগী অধ্যাপকের পদ খালি রয়েছে। এছাড়া ২ জন অধ্যাপক ও ২ জন সহযোগী অধ্যাপকের পদ দাবি করে একটি আবেদনপত্র জমা দেয়া হয়েছে বলে জানান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ডা. আর কে এস রয়েল।

অন্তর্বিভাগ
এই বিভাগে নারী ও পুরুষদের জন্য পৃথক পৃথক ওয়ার্ডের ব্যবস্থা রয়েছে। নারীদের ৪টি ও পুরুষদের ১৬টি বেড নিয়ে এখানে মোট বেডের সংখ্যা ২০। তবে লক্ষণীয় দিক হলো, এই ২০টি বেডে প্রায় ১৮-২৬ জন রোগী সেবা পাচ্ছেন বলে জানান বিভাগ প্রধান ও সহকারী অধ্যাপক ডা. আর কে এস রয়েল। ১০ টাকা ফি বাবদ এখানে রোগী ভর্তি করানো হয়ে থাকে। তাছাড়া এখানে ৪টি পেয়িং বেড রয়েছে। যার ফি দিনপ্রতি ২২০ টাকা।

বহির্বিভাগ
এই বিভাগে শুধু একটি সেবা চালু আছে আর তা হলো বহির্বিভাগ সেবা। বহির্বিভাগে ১০ টাকা টিকেট ফিতে রোগী দেখা হয়। শুক্রবার সরকারি ছুটি ছাড়া বাকি ছয়দিন সকাল ৮টা থেকে দুপুর আড়াইটা পর্যন্ত চলে রোগী দেখার কার্যক্রম।

সাইকোথেরাপি (কাউন্সেলিং)
মানসিক রোগীদের স্বাস্থ্য সেবা হিসেবে এখানে কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করা হয়। বিভাগের শিক্ষকরা সরাসরি এ সেবা দিয়ে থাকেন। বিভিন্ন বিভাগ থেকে রেফার্ড রোগীদেরও শিক্ষকরা কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করে থাকেন। এছাড়াও এই বিভাগে প্রশিক্ষণরত শিক্ষার্থীরাও শিক্ষকের নিয়ন্ত্রণাধীনে থেকে রোগীদের কাউন্সেলিং সেবা প্রদান করে থাকেন।

জরুরি সেবা
এখানে জরুরি সেবাও চালু রয়েছে। জরুরি চাহিদার ভিত্তিতে মানসিক রোগীদের এই সেবা প্রদান করা হয়। এছাড়াও এখানে ইসিটি সেবাও রয়েছে। প্রয়োজন অনুসারে রোগীদের এই সেবা প্রদান করা হয়।

শিক্ষা কার্যক্রম
এই মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের শিক্ষার্থীদের স্নাতকোত্তর (এমডি রেসিডেন্সি) শিক্ষা প্রদান করা হয়। প্রতিবছর এখানে ৪ জন শিক্ষার্থী ভর্তি হয়ে থাকেন। এ কলেজে স্নাতকোত্তর পর্যায়ে বিভিন্ন কোর্স রয়েছে। অর্থাৎ এখানে মানসিক রোগ বিভাগে পোস্ট গ্রাজুয়েশন কোর্সও চালু আছে। প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে এ যাবৎ প্রায় ১৬ জন শিক্ষার্থী এমফিল ডিগ্রি অর্জন করে দেশে-বিদেশে বিভিন্ন প্রসিদ্ধ মেডিকেল হাসপাতালে মানসিক সেবা দিচ্ছেন বলে জানান সহকারী অধ্যাপক ডা. আর কে এস রয়েল।

অন্যান্য
এছাড়াও বিভাগটি মাঝে মাঝে বিভিন্ন সেমিনার, কনফারেন্স ও কর্মশালার আয়োজন করে থাকে। বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় বা মেডিকেল থেকে আগত শিক্ষার্থীদেরও ট্রেনিং করানো হয়ে থাকে। এখানে পোস্ট গ্রাজুয়েশনের পাশাপাশি বিভিন্ন সময় সাধারণত ব্যক্তিগত উদ্যোগে গবেষণার কাজ হয়ে থাকে।

smchmb

যোগাযোগ
সাইকিয়াট্রি ওপিডি
তৃতীয় তলা
নতুন বহির্বিভাগ ভবন
এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ, সিলেট
ওয়েবসাইট-www.magosmanimedicalcollege.com
জাহিদ হাসান,
প্রতিবেদক, মনেরখবর.কম
 

এ সম্পর্কিত অন্য লেখার লিংক-

ঢামেকের মানসিক রোগ বিভাগ

স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগ বিভাগের সেবাতথ্য

শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেলে কীভাবে পাবেন মানসিক রোগের সেবা

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

 শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মানসিক রোগ বিভাগ

খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ, বগুড়া-মনোরোগ বিভাগ

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মানসিক রোগবিভাগের সেবাতথ্য

ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ মানসিক রোগ বিভাগ

রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মানসিক রোগ বিভাগ

 
 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

দ্বন্দ্বপূর্ণ আচরণ এবং আমাদের চিন্তার জগত

“বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করে চাকুরীতে ঢোকার পরপরই সিমির (ছদ্মনাম) বিয়ে হয়ে যায়। ২বছরের একটি সন্তান আছে তাঁর। অন্তঃস্বত্বা হবার পরই চাকুরীটা ছেড়ে দেয়। ইদানিং সে...

মহামারীতে সম্পর্কে টানাপড়েন এড়াতে করণীয়

কোভিড-১৯এর এই দুঃসময়ে গুলোকে বেশ জটিল মনে হতে পারে। তবে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে পারলে মনের অমিল এবং সম্পর্কের এই জটিলতা গুলোকে বেশ সহজে...

সেক্সুয়াল মিথ ও যৌন স্বাস্থ্য: ২য় পর্ব

পর্নোগ্রাফীতে যে সহজতা থাকে, যে উত্তেজনার মাত্রা থাকে বাস্তব জীবনে তা থাকে না। কারণ অভিনয়ে বাড়াবাড়ি রকমের কিছু না থাকলে মানুষের মনে তা ধরে...

মহামারী কালে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে পারিবারিক বন্ধনের ভূমিকা

আমাদের কাছের মানুষ গুলোর সাথে আমাদের সম্পর্ক যত গভীর, বিপদ মোকাবেলায় আমাদের মানসিক শক্তি থাকবে ততোটাই বেশী। যে কোন বিপদ মোকাবেলায় পরিবার ও কাছের মানুষদের...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন