করোনায় মানসিক রোগের চিকিৎসা ৬১ শতাংশ ব্যাহত:ডব্লিউএইচও

0
128
মানসিক স্বাস্থ্য: চিকিৎসার উপর আস্থা রাখুন মানসিক রোগ

কোভিড ১৯-এর কারণে বিভিন্ন ধরনের মানসিক রোগ তৈরি হয়েছে গত কয়েক মাসে। পাশাপাশি, এই মহামারীর কারণে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে মানসিক রোগের চিকিৎসাও। স্বাস্থ্য পরিষেবায় কী প্রভাব ফেলেছে বর্তমান মহামারী, সেই সম্পর্কে বিশ্বের ১০৫টি দেশকে নিয়ে করা এক সমীক্ষায় উঠে এসেছে এমনই তথ্য।

শুক্রবার সেই সমীক্ষার ফল প্রকাশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। সেখানে দেখা যাচ্ছে, মার্চ থেকে জুন— এই সময়ের মধ্যে বিশ্বের ৯০ শতাংশ দেশে নন-কোভিড চিকিৎসা পুরোপুরি ব্যাহত হয়েছে। বিশেষ করে কোভিড-১৯ এর প্রভাব সব চেয়ে বেশি পড়েছে মধ্য এবং নিম্ন আয়ের দেশগুলির চিকিৎসা পরিষেবায়।

সমীক্ষা জানাচ্ছে, মানসিক রোগের চিকিৎসা ব্যাহত হয়েছে ৬১ শতাংশ ক্ষেত্রে। এক দিকে কোভিড-১৯ যেমন জার্মোফোবিয়া (সব কিছুতেই প্যাথোজেন আছে মনে করা), ডক্টর শপিং (ঘনঘন চিকিৎসককে দেখানো)-এর প্রবণতা বাড়িয়ে দিয়েছে, অন্য দিকে যাঁদের ইতিমধ্যেই মানসিক রোগের চিকিৎসা চলছে, তাঁরা সেই চিকিৎসা করাতে সংশ্লিষ্ট চিকিৎসাকেন্দ্রে যেতে পারেননি।

সমীক্ষায় জানানো হয়, বিপর্যস্ত হওয়া চিকিৎসার মধ্যে রুটিন স্বাস্থ্য পরীক্ষা (৭০ শতাংশ), ফেসিলিটি বেস্ড সার্ভিস (৬১ শতাংশ), নন-কমিউনিকেব্ল রোগের চিকিৎসা (৬৮ শতাংশ) ও পরিবার পরিকল্পনাও (৬১ শতাংশ) রয়েছে। অনেক দেশে আবার ম্যালেরিয়া (৪৬ শতাংশ) এবং যক্ষ্ণার চিকিৎসা (৪২ শতাংশ)  ব্যাহত হয়েছে। জীবনদায়ী জরুরি পরিষেবার ক্ষেত্রেও প্রভাব পড়েছে প্রায় সব দেশে।

সমীক্ষায় অংশগ্রহণকারী ২২ শতাংশ দেশে ২৪ ঘণ্টার জরুরি পরিষেবা ব্যাহত হয়েছে, রক্ত সঞ্চালন চিকিৎসা প্রক্রিয়া ব্যাহত হয়েছে ২৩ শতাংশ দেশে। আবার ১৯ শতাংশ দেশে জরুরি অস্ত্রোপচার করা যায়নি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সঙ্গে যুক্ত এক গবেষকের কথায়, ‘‘নন-কোভিড চিকিৎসা যে ব্যাহত হয়েছে, তা বোঝাই যাচ্ছিল। এই সমীক্ষা সেই চিত্রকেই তথ্যের মাধ্যমে সামনে তুলে ধরল।’’

মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে চিকিৎসকের সরাসরি পরামর্শ পেতে দেখুন: মনের খবর ব্লগ
করোনায় মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক টেলিসেবা পেতে দেখুন: সার্বক্ষণিক যোগাযোগ
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
করোনায় সচেতনতা বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও বার্তা দেখুন: সুস্থ থাকুন সর্তক থাকুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here