মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু

Home সংবাদ আন্তর্জাতিক মনোরোগ সারাতে নাটক!

মনোরোগ সারাতে নাটক!

মানসিক রোগ সারাতে চিকিৎসা সেবা গ্রহণের কথা বলা হয় পৃথিবীর সব দেশেই। কিন্তু ব্রাজিলের এক মনোরোগবিদ বললেন ভিন্ন কথা। তার মতে, অসুধ সেবন ছাড়াও সৃজনশীল কাজের মধ্যদিয়ে মানসিক রোগের চিকিৎসা করা সম্ভব। সৃজনশীল কাজের মধ্য দিয়ে মানুষ আত্মবিশ্বাসী হয়ে উঠে, নিজ সম্পর্কে সচেতন হতে পারে এবং মুক্তি পেতে পারে হতাশা, দুশ্চিন্তা থেকে।
ব্রাজিলের রিওডি জেনেরিয়োর মনোরোগবিদ ড. রিতোর পর্দিয়োজ। মানসিক রোগের চিকিৎসার জন্য থিয়েটারকে বেছে নিয়েছেন। দীর্ঘদিন ধরে ‘নিজ দ্য সিলভিরা মেন্টাল হেলথ ইন্সটিটিউটের রোগীদের নাটকে অভিনয় করানোর মাধ্যমে চিকিৎসা দিয়ে আসছেন তিনি।
সম্প্রতি তার নির্দেশনায় ২০ মানসিক রোগী সমুদ্রের তীরে শেক্সপিয়ারের ‘ম্যাকবেথ’ নাটকে অভিনয় করেছে। আধুনিক বাদ্যযন্ত্র আর ঢোল-তবলা নিয়ে তারা অভিনয় করছেন।
শেক্সপিয়ারের নাটক ছাড়াও মানসিক রোগীদের সিরিয়া, ফিলিস্তিন ও লাতিন আমেরিকার দেশগুলোর বর্তমান পরিস্থিতি নিয়ে নির্মিত বিভিন্ন নাটকে অভিনয় করান তিনি।
পর্দিয়োজ-এর মন্তব্য, ‘ড্রামা থেরাপি’র কারণে মানসিক রোগীরা তাদের আবেগ ও অনুভূতি প্রকাশ করতে পারে। অভিনয়ের দৃশ্য পরে দেখে নিজেদের অগ্রগতি সম্পর্কে মূল্যায়নও করতে পারেন তারা। অন্যদের সাথে মতবিনিময়ের সময় কীভাবে যোগাযোগ করা উচিত সেটিও তারা উপলব্ধি করতে পারেন।
‘মানসিক রোগী যারা সিজোফ্রেনিয়া, ক্রনিক সাইকোসিস, হতাশায় ভোগেন নাটকের মাধ্যমে তারা অন্যের সাথে নিজের আবেগ ও অনুভূতিকে সহজেই প্রকাশ করতে পারেন বলে বিশ্বাস এ মনোরোগবিদের। তিনি বলেন, মানসিক রোগীরা নাটকে অভিনয় করার মাধ্যম মানুষের সাথে যোগাযোগ বাড়ে, সম্পর্ক গড়ে ওঠে এবং বিচ্ছিন্নতা থেকে মুক্তি পান।’
এ মনোরোগবিদ জানান, হাসপাতালে এমন কিছু রোগী আসতো যারা প্রথম ভালো করে কথাই বলতে পারতো না। কিন্তু দীর্ঘমেয়াদে নাটকে অভিনয় করার ফলে এখন তারা অনায়াশেই স্বতঃস্ফূর্তভাবে কথা বলতে পারার পাশাপাশি গানও করতে পারেন।
তিনি মনে করেন, মানসিক রোগীর জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিক হচ্ছে স্বাধীনভাবে, সংকোচ না করা কথা বলা। সেক্ষেত্রে নাটক তাদের জন্য একরকম ‘থেরাপি’ হিসেবে কাজ করবে।
তবে, এর সমালোচনাও হচ্ছে সমান তালে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ড. লিওনার্দো পালমেরো মনে করেন, ড্রামা থেরাপি মানসিক রোগের জন্য সম্পূরক হিসেবে কাজ করে। কিন্তু এটাকে একমাত্র পথ্য হিসেবে মনে করা উচিৎ হবে না। কারণ মানসিক রোগ থেকে মুক্ত হতে যেকোনো একটি উপায় অবলম্বন করে সফল হওয়া যায় না। তাই ওষুধ সেবন করা এবং কাউন্সেলিং সেবা গ্রহণ করাই হচ্ছে তাদের জন্য বেশি লাভজনক।
জানা যায়, মানসিক রোগীকে থিয়েটারের মাধ্যমে চিকিৎসা দেয়ার ধারণা প্রথম মাথায় আসে নাট্যকর্মী ও পরিচালক অগাস্ট বোলের। ১৯৫০ সালে তিনি এ নিয়ে কাজ শুরু করেন।
এছাড়া মানসিক রোগের চিকিৎসার জন্য ১৯২০ সালে ওসোরিও সিজার চিত্র শিল্পকে ‘থেরাপি’ হিসেবে ব্যবহার করেছিলেন। ক্রমে এটি জার্মানি, লন্ডন, স্কটল্যান্ডেও জনপ্রিয়তা পায়।
সূত্র: বিবিসি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

কোভিড ১৯ প্রেক্ষিতে মানসিক স্বাস্থ্য সেবা অত্যন্ত জরুরি: রোকসানা আক্তার

কোভিড-১৯ এর প্রভাবে বিরাট পরিবর্তন এসেছে আমাদের জীবনযাত্রায়। পরিবর্তন এসেছে আমাদের দৈনন্দিন রুটিনে। এই পরিবর্তনের সাথে খাপ খাইয়ে কেমন কাটছে সাধারন মানুষের জীবনযাপন, কি...

শাস্তি নিশ্চিত হলেই কি ধর্ষণ কমে যাবে: অনলাইন জরিপ

ধর্ষণ সহ নারী নির্যাতনের ঘটনা যেন প্রতিনিয়ন বেড়েই চলেছে আমাদের দেশে। কোনোভাবেই যেন তা রোধ করা যাচ্ছে না। সম্প্রতি জন দাবীর মুখে ধর্ষণের সর্বোচ্চ...

মানসিক রোগ চিকিৎসার ক্ষেত্রে স্টিগমা সবচেয়ে বড় বাধা

মানসিক রোগ চিকিৎসার ক্ষেত্রে স্টিগমা সবচেয়ে বড় বাধা। সর্বশেষ জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য জরিপে বিভিন্ন প্রশ্নের প্রেক্ষিতে এই স্টিগমার পরিমান ৩৮-৯৮% পর্যন্ত দেখা গেছে। ২০১৯...

ইম্পোস্টার সিনড্রোম: নিজেকে অযোগ্য মনে করার রোগ

ইম্পোস্টার সিনড্রোম হলো এমন এক ধরণের মানসিক অবস্থা যে একজন মানুষ নিজের যোগ্যতা বা অর্জনকে সন্দেহের চোখে দেখে ও নিজেকে অযোগ্য মনে করে। মনে...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন