মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home সংবাদ আন্তর্জাতিক শতভাগ সদস্যকে মনোরোগ নিয়ে প্রশিক্ষণ দেবে ফ্লাগস্টাফ পুলিশ বিভাগ

শতভাগ সদস্যকে মনোরোগ নিয়ে প্রশিক্ষণ দেবে ফ্লাগস্টাফ পুলিশ বিভাগ

শুধু সুস্থ শরীর নয়, সুস্থ মনের হতে হবে পুলিশ সদস্যদের। এ লক্ষ্যেই নিজেদের সব কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মানসিক স্বাস্থ্যের প্রাথমিক চিকিৎসা (মেন্টাল হেলথ ফার্স্ট এইড) প্রশিক্ষণ দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের অ্যারিজোনো অঙ্গরাজ্যের ফ্লাগস্টাফ পুলিশ বিভাগ-এফপিডি।

সম্প্রতি টেলর স্টুয়ার্ট নামে এক অফিসার আত্মহত্যার পর মানসিক সুস্থতার বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে নেয় ফ্লাগস্টাফ পুলিশ কর্তৃপক্ষ। অতীতেও পুলিশ অফিসারের আত্মহত্যার ঘটনা ঘটলেও স্টুয়ার্টের ঘটনা তার সব সহকর্মীকে নাড়া দেয়, তাকে হারিয়ে এখনও অনেকে শোকাহত।

৬৪ বর্গ কিলোমিটারের শহর ফ্লাগস্টাফের পুলিশ বিভাগে বিভিন্ন পদে পুলিশ কর্মকর্তা ও বিভিন্ন বেসামরিক কর্মকর্তা অন্তত ১৭০ জন। তাদের সবাইকে মানসিক চাপ, সিজোফ্রেনিয়া, আত্মহত্যার প্রবণতা, উদ্বিগ্নতা বা ভয়াবহ স্মৃতিতে মনপীড়ার মতো বিভিন্ন মানসিক সমস্যা নিয়ে চিকিৎসা ও থেরাপি দিচ্ছে পুলিশ বিভাগের নিজস্ব উইং এফপিডি’র ক্রিটিক্যাল ইনসিডেন্ট স্ট্রেস ম্যানেজমেন্ট-সিআইএসএম।

সিআইএসএম-এর মুখপাত্র সার্জেন্ট মার্গারেট বেন্টজেন বলেন, ‘১৫ বা ২০ বছর আগের তুলনায় এখন আমরা আমাদের সদস্যদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপর অনেক গুরুত্ব দিচ্ছি।’

কর্মকর্তা-কর্মচারীদের প্রথমে মানসিক রোগের প্রাথমিক চিকিৎসা বা থেরাপির বিভিন্ন বিষয়ে কর্মকর্তাদের চার থেকে আট ঘণ্টার প্রশিক্ষণ প্রথমে নিতে হয়। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে মানসিক স্বাস্থ্য সংক্রান্ত আরও প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রয়েছে।

বিভিন্ন জটিল মানসিক সমস্যা ও নিরাময় বা সেরে উঠার ব্যাপারে সদস্যদের নিবিড় প্রশিক্ষণও দেয় ফ্লাগস্টাফ পুলিশ কর্তৃপক্ষ। ৪০ ঘণ্টার এ প্রশিক্ষণ দেয় তাদের ক্রাইসিস ইন্টারভেনশন টিম-সিআইটি। কৃতিত্বের সঙ্গে প্রশিক্ষণ শেষ করে সনদপত্র মেলে প্রশিক্ষণার্থীদের।

আর তাদের এই মানসিক স্বাস্থ্য সেবা কর্মসূচি শুধু পুলিশ স্টেশনের মধ্যেই সীমাবদ্ধ থাকছে না। সাধারণ জনগণ যারা মানসিক রোগে ভুগছেন, তারা পাচ্ছেন এ সেবা।

অন্যান্য সেবা দিতে জনগণের ডাকে ছুটে পুলিশ কর্মকর্তাদের যাওয়ার পাশাপাশি মানসিক বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে এখন শহরের জনগণদের সেবা দেয় এফপিডির মানসিক স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা। প্রতিদিন গড়ে পুলিশ স্টেশনে সেবা পেতে বা সমস্যা নিয়ে কথা বলতে যে ফোনকল আসে তার ১০ থেকে ২০ শতাংশই আসে মানসিক সমস্যা থেকে উত্তরণে পরামর্শ চেয়ে।

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, মনের খবর
সূত্র: অ্যারিজোনাডেইলিসান.কম

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

দ্বন্দ্বপূর্ণ আচরণ এবং আমাদের চিন্তার জগত

“বিশ্ববিদ্যালয় শেষ করে চাকুরীতে ঢোকার পরপরই সিমির (ছদ্মনাম) বিয়ে হয়ে যায়। ২বছরের একটি সন্তান আছে তাঁর। অন্তঃস্বত্বা হবার পরই চাকুরীটা ছেড়ে দেয়। ইদানিং সে...

মহামারীতে সম্পর্কে টানাপড়েন এড়াতে করণীয়

কোভিড-১৯এর এই দুঃসময়ে গুলোকে বেশ জটিল মনে হতে পারে। তবে কিছু বিষয় খেয়াল রাখতে পারলে মনের অমিল এবং সম্পর্কের এই জটিলতা গুলোকে বেশ সহজে...

সেক্সুয়াল মিথ ও যৌন স্বাস্থ্য: ২য় পর্ব

পর্নোগ্রাফীতে যে সহজতা থাকে, যে উত্তেজনার মাত্রা থাকে বাস্তব জীবনে তা থাকে না। কারণ অভিনয়ে বাড়াবাড়ি রকমের কিছু না থাকলে মানুষের মনে তা ধরে...

মহামারী কালে মানসিক চাপ নিয়ন্ত্রণে পারিবারিক বন্ধনের ভূমিকা

আমাদের কাছের মানুষ গুলোর সাথে আমাদের সম্পর্ক যত গভীর, বিপদ মোকাবেলায় আমাদের মানসিক শক্তি থাকবে ততোটাই বেশী। যে কোন বিপদ মোকাবেলায় পরিবার ও কাছের মানুষদের...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন