মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home মানসিক স্বাস্থ্য শিশু কিশোর শিশুর আবেগ নিয়ন্ত্রণ কীভাবে শেখাবেন

শিশুর আবেগ নিয়ন্ত্রণ কীভাবে শেখাবেন

শিশুর আবেগ শিশুর মানসিক স্বাস্থ্যের অতি গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো আবেগ। আবেগ মানুষের সহজাত প্রবৃত্তি। জীবনে সফলতার জন্য আবেগের সুষ্ঠু প্রকাশ এবং নিয়ন্ত্রন অতীব জরুরি। এই আবেগকে সাধারণত দুটি প্রধান ভাগে ভাগ করা হয়, ইতিবাচক আবেগ (আদর, ভালোবাসা, মায়া, মমতা, সুখ, আনন্দ ইত্যাদি) এবং নেতিবাচক আবেগ (রাগ, ক্ষোভ, ঘৃণা, কষ্ট ইত্যাদি)। এই আবেগগুলো স্থান-কাল-পাত্র ভেদে ভিন্ন হয়ে থাকে, কেননা যেকোনো মানুষ তার চিন্তার বহিঃপ্রকাশ করে আবেগের মাধ্যমে।
এই আবেগের কারণে আমরা মিলেমিশে বাস করি। আবেগের এই ভিন্নতার (আনন্দ, দুঃখ, ভয়, উত্তেজনা ইত্যাদি) কারণে আমাদের জীবন উপভোগ্য হয়, আবার এই আবেগের কারণেই (রাগ, হিংসা, ঘৃণা, লোভ ইত্যাদি) যুদ্ধ, খুন, হানাহানি, পারিবারিক-কলহসহ নানা বিশৃঙ্খলা তৈরি হয়। আবেগ শিশুর মানবীয় বিকাশের অন্যতম একটি বিষয়। জন্মের পর থেকেই শুরু হয় আবেগের বিকাশ। আবেগ বয়সভেদে ভিন্ন হয়। শৈশবে শিশুর আবেগ বেশি থাকে। রাগ, ভয়, ঈর্ষা,কৌতূহল, হিংসা, সুখ-দুঃখ, স্নেহ ইত্যাদির মাধ্যমে শিশুর আবেগ প্রকাশ পায়।
যে সকল শিশু সঠিকভাবে আবেগ প্রকাশ করতে পারে তাদের স্কুলের ফলাফল ভালো হয়, বাবা-মা, বন্ধুবান্ধব, আত্মীয়, প্রতিবেশী সবার সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রাখতে পারে। আবেগের এই বহিঃপ্রকাশে বাবা-মার অনেক অবদান থাকে।

তাই আসুন জেনে নেই শিশুর এই আবেগ প্রকাশে কীভাবে সাহায্য করবেন :
  •  শিশুর প্রতিটি কথা মনোযোগ দিয়ে শুনুন কারন আপনি মনোযোগ দিয়ে না শুনলে শিশু তার আবেগ অস্বাভাবিকভাবে প্রকাশ করতে পারে ।
  • শিশু যদি সঠিকভাবে তার আবেগ প্রকাশ করতে পারে তবে তার প্রশংসা করুন
  • নিজে সঠিকভাবে আবেগ প্রকাশ করুন, কারণ শিশুরা অনুকরণপ্রিয়, আপনার ভালো আচরণ তাকেও ভালো আচরণ করতে উৎসাহিত করবে।
  • শিশুর মেজাজ অনুযায়ী আচরণ করুন : সব শিশু এক রকম হয় না। জন্ম থেকেই শিশুদের মেজাজ আলাদা হয়। আবার শিশুর মনের ভাব সবসময় একইরকম থাকে না। তাই শিশুর মেজাজ অনুযায়ী আচরণ করতে হয়।
  • আদর-স্নেহ নিতে ও দিতে শেখান : একটি শিশুর মধ্যে জন্মগতভাবেই আদর-স্নেহের চাহিদা রয়েছে। মা-বাবার আদর-স্নেহ দানের মাধ্যমেই শিশু ভালোবাসা দিতে ও নিতে শেখে। তাই শিশুর মধ্যে ভালোবাসা সৃষ্টির জন্য তাকে যথেষ্ট আদর-স্নেহ দিন। শরীরে হাত বুলিয়ে তা প্রকাশ করুন। শিশু যদি আপনাকে জড়িয়ে ধরে আপনিও তাকে জড়িয়ে ধরুন।
  • আবেগ প্রকাশের পাশাপাশি শিশুকে আবেগ নিয়ন্ত্রণের কৌশলও শেখাতে হবে। কারণ সঠিকভাবে আবেগ নিয়ন্ত্রণ না শিখলে শিশুর বিভিন্ন মানসিক সমস্যা তৈরি হতে পারে। যেমন-দুশ্চিন্তা, হতাশা, ব্যক্তিত্বের সমস্যা ইত্যাদি।
শিশুর আবেগ নিয়ন্ত্রণের নানা কৌশলসমূহ:
  • আবেগ প্রকাশে বাধা দেবেন না: শিশুকে আবেগ প্রকাশে বাধা দিলে বা আবেগ প্রকাশের কারণে তাকে লজ্জা দিলে তাদের আবেগের বিকাশ বাধাগ্রস্ত হয়। যেমন-রাগ করে যদি বলা হয় ‘ভয় পেয়ো না’ বা ‘মন খারাপের কী আছে?’ তাহলে সে মনে করতে পারে-তার আবেগ ঠিক নয়। সে হয়ত সারা জীবন তার আবেগকে চেপে রাখবে ও নানা ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যায় পড়বে। বরং তার আবেগকে স্বীকার করে তাকে আশ্বস্ত করতে হয়।
  • শিশুর যৌক্তিক দাবি পূরণ করা উচিত: অযৌক্তিক দাবি পূরণ করা উচিত নয়, শিশুকে তার পরিবারের ক্ষমতা-অক্ষমতা সম্পর্কে জানানো উচিত তাহলে সে অযৌক্তিক দাবি করবে না, নিজের ক্ষমতার অতিরিক্ত কিছু করতে চাইবে না।
  • আবেগকে সংযত করতে শেখাতে হবে: তিরস্কার, উপহাস বা শাস্তিমূলক ব্যবস্থা দ্বারা শিশুর অসংযত আবেগকে নিয়ন্ত্রণ কর যায় না, তাই শিশুকে বুঝিয়ে আবেগকে সংযত করতে শেখাতে হবে।
  • মনোবল অটুট রাখা শেখাতে হবে: প্রতিটি মানুষের সীমাবদ্ধতা আছে, এই সহজ সত্যকে স্বীকার করে ব্যর্থতা, হতাশা, প্রত্যাখ্যান প্রভৃতিকে জয় করার চেষ্টা করতে হবে, যেকোনো পরিস্থিতিতে মনোবল অটুট রাখা শেখাতে হবে।
  • কেউ ভুলত্রুটি ধরিয়ে দিয়ে সেগুলো সংশোধনের প্রবণতা তৈরি করতে হবে।
  • নিজের ক্ষমতা-অক্ষমতা সম্পর্কে সচেতন  করা: শিশুকে নিজের ক্ষমতা-অক্ষমতা সম্পর্কে সচেতন করতে হবে এবং অপরকে তার ক্ষমতা ও যোগ্যতা অনুযায়ী মর্যাদা দিতে শেখাতে হবে, তাহলে শিশুর মনে হতাশা বা হীনম্মন্যতা তৈরি হবে না, নিজের যা আছে তাই নিয়ে সন্তুষ্ট থাকার প্রবৃত্তি গড়ে তুলতে হবে। তাহলে অন্যের প্রতি ঈর্ষা অনুভূত হবে না।যেকোনো সমালোচনাকে সহজভাবে গ্রহণ ও সহ্য করার ক্ষমতা অর্জন করতে হবে, তাহলে শিশুমনে প্রতিহিংসা তৈরি হবে না।মহৎ কাজের প্রতি আকর্ষণ, অসত্য, অন্যায়, অসামাজিক কাজের প্রতি ঘৃণাবোধ, প্রতিবেশী, আত্মীয় ও সর্বস্তরের মানুষের প্রতি মমতা, সহানুভূতি, সহমর্মিতার বীজ যথাযথভাবে শিশুর হৃদয়ে রোপন করতে হবে।
  • আত্মবিশ্বাসের অভাব, প্রতিকূল পারিবারিক, সামাজিক, প্রাকৃতিক পরিবেশ, স্নেহ-ভালোবাসা, নিরাপত্তার অভাব ইত্যাদি শিশুমনে ভয় তৈরি করে। তাই শিশুরা অনেক সময় নিন্দা, লজ্জা ও সমালোচনার ভয়ে আবেগকে প্রকাশ না করে দমিয়ে রাখে। আবেগের সুষ্ঠু প্রকাশ ও নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমেই শিশুর স্বভাবচরিত্র, ব্যক্তিত্ব গড়ে ওঠে। আবেগের প্রকাশকে নিয়ন্ত্রণ করতে পরিবারের পাশাপাশি আত্মীয়, শিক্ষক, সমাজ, দেশের আইনগত অবস্থা ইত্যাদির ভ‚মিকা রয়েছে, তাই শিশুদের সাথে বন্ধুসুলভ ও সহযোগিতাপূর্ণ আচরণ করতে হবে যাতে তারা তাদের আবেগ (ভয়, লজ্জা, দুঃখ, কষ্ট ইত্যাদি) গোপন না করে।

মনে রাখতে হবে, শৈশবের শিক্ষাটাই মানুষ সারাজীবন বহন করে। আর শিশুরা বড়োদের অজ্ঞাতেই তাদের পর্যবেক্ষণ করে। শিশুর ব্যক্তিত্ব সেভাবেই গড়ে উঠবে যেরকম সে দেখবে। কাজেই সবচেয়ে আগে জরুরি শিশুকে যা শেখাতে চাই নিজেরা সেইমতো আচরণ করা।
তথ্যসূত্র: মনের খবর মাসিক ম্যাগাজিন, ২য় বর্ষ, ৫ম সংখ্যায় প্রকাশিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

মানসিক চাপে ত্বকের ক্ষতি

মানসিক চাপের বহু ক্ষতিকর দিক রয়েছে, যার মধ্যে রয়েছে ত্বকের ক্ষতি। এ ছাড়াও উচ্চমাত্রার মানসিক চাপের ফলে চুল পড়া, তৈলাক্ত মাথার ত্বক, অতিরিক্ত ঘাম...

পর্নোগ্রাফির আসক্তি যেভাবে প্রভাবিত করে ব্যক্তির চিন্তা

পর্নোগ্রাফির আসক্তি মানুষের জীবনে নানারকম নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। বদলে দেয় মানুষের চিন্তা ধারা। সম্প্রতি যুক্তরাজ্যে শিশুদের নিয়ে কাজ করে এরকম একটি দাতব্য সংস্থা প্ল্যান ইউকে...

কাকে বিশ্বাস করবেন? বিশ্বাস-অবিশ্বাসের পেছনের মনস্তাত্ত্বিক যুক্তি

যখন মনের জোর ধীরে ধীরে কমতে থাকে, তখন উদ্বেগ এবং আশঙ্কা ধীরে ধীরে বাড়তে থাকে। এতে করে মানুষ যেমন নিজের উপর বিশ্বাস ফারিয়ে ফেলে,...

মৃত্যুভয় কাজ করে এবং সারাক্ষণ কল্পনার ভেতর ডুবে থাকি

সমস্যা: আমি কুমিল্লা থেকে মোঃ বেলাল হোসেন বলছি। আমি যেকোনো কিছু কল্পনা করতে ভালোবাসি, কল্পনার ভেতরই ডুবে থাকি সারাক্ষণ। মাথায় নানা রকম চিন্তা আসে...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন