মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home জীবনাচরণ স্ট্রেস কমাতে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন

স্ট্রেস কমাতে খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন

বর্তমানে ‘স্ট্রেস’ শব্দটির সঙ্গে কমবেশি সবাই পরিচিত। মানসিক চাপ বা ধকল অর্থে শব্দটি বহুল ব্যবহৃত। ভালো চাকরি করছেন, ভালো জায়গায় পড়ালেখা করছেন, চমৎকার রুটিন মেনে চলায় সবার প্রিয় মানুষ আপনি। তারপরও দিনশেষে অনুভব করছেন প্রচণ্ড শূন্যতা! অযথাই নানা চিন্তা সিন্দাবাদের ভূতের মতো জেঁকে বসছে আপনার ঘাড়ে। অথচ ভেবেও পাচ্ছেন না কেন আপনার সঙ্গে এমন হচ্ছে।
সেক্ষেত্রে প্রথমেই আপনার প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় নজর দিতে পরামর্শ দিয়েছেন ব্রিটিশ চিকিৎসক ও গবেষক ডা. রঙ্গন চ্যাটার্জি। এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের জার্নালে প্রকাশিত একটি গবেষণা প্রতিবেদনে তিনি বলেন, আমরা নিজেরাই নিজেদের স্ট্রেসের জন্য পুরোপুরি দায়ী। নিজের প্রতি যথেষ্ট সচেতনতাই পারে স্ট্রেসমুক্ত জীবন দিতে। এজন্য প্রথমেই খাদ্যতালিকায় পরিবর্তন আনার বিষয়ে বিশদ বর্ণনা করেছেন এই গবেষক। আসুন জেনে নেওয়া যাক সেগুলো।
১. ব্যাকটেরিয়া বা জীবাণু শুনলেই ভয় হয়। অথচ আপনার পাকস্থলীতে অসংখ্য উপকারী জীবাণু রয়েছে যা ক্যানসার হওয়া থেকেও রক্ষা করে আপনাকে। এই জীবাণুর সংখ্যা যদি কমে যায় তবে আপনার মেজাজও খারাপ হতে শুরু করবে। কেননা অনেক সময় আমরা শরীরের ভেতরের অস্বস্তি ধরতে পারি না। কিন্তু এটি প্রভাব ফেলে আমাদের মনে। তাই উপকারী জীবাণুর সংখ্যা ধরে রাখতে আপনাকে প্রথমেই খেতে হবে দই, কাস্টার্ড অথবা দুধজাতীয় খাবার। তবে অবশ্যই চিনি ছাড়া।
২. দেহে ভিটামিনের মাত্রা ঠিক রাখতে প্রতিদিন পাঁচ রঙের সবজি বা ফল খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি। অনেক সময় আমরা বুঝতে পারি না কোন খাবার খেলে কী ভিটামিন পাওয়া যাবে। এক্ষেত্রে সহজ উপায় ভিন্ন রঙের সবজি বা ফল বাছাই করা।
৩. চিনি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার থেকে যতটা সম্ভব দূরে থাকুন। গবেষণায় বলা হয়েছে, নেশাজাতীয় যেকোনো দ্রব্যের চেয়ে কোনো অংশে পিছিয়ে নেই চিনি। আপনি যত মিষ্টিজাতীয় খাবার খাবেন ততই শরীরে চিনির চাহিদা তৈরি হবে। আর এটি মনের ওপর বিরূপ প্রভাব ফেলে।
৪. ধূমপান করেন না আবার কফিও খুব একটা খান না। এতেই ক্যাফেইনমুক্ত বলে ভাবছেন নিজেকে? শুনলে অবাক হবেন চকোলেট, আইসক্রিম, হট চকোলেট, সিরিয়াল, পুডিং এমনকী ফ্রোজেন দইয়েও ক্যাফেইন রয়েছে। তাই ক্যাফেইনযুক্ত যেকোনো খাবার খাওয়ার পর হাঁটুন বা ভারি কাজ করুন। এতে ক্যাফেইন শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে পারবে না।
৫. স্ট্রেসের সঙ্গে ক্ষুধাকে মিলিয়ে ফেলবেন না। রঙ্গন তার গবেষণায় দেখেছেন মানুষ মানসিক চাপে থাকলে প্রচুর অস্বাস্থ্যকর খাবার খেতে শুরু করে। বাইরে আড্ডায় ভাজাপোড়া বা জাঙ্কফুড খেয়ে যায় বিরামহীনভাবে। এটি মোটেও উচিত নয়।
আপনার দেহটাকে সুস্থ রাখার দায়িত্ব আপনার। মনের যত্ন নিন দেহেও রোগ বাসা বাঁধবে না। যথেষ্ট পরিশ্রম করুন পাশাপাশি অন্তত ৬-৮ ঘণ্টা পূর্ণ বিশ্রাম নিতে হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন

Most Popular

মাদকাসক্ত ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হওয়ার অধিকতর ঝুঁকিতে

কোভিড-১৯ মহামারী এখন সমস্ত পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। যে কেউ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে গবেষণা বলছে, মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের মাঝে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি...

মানসিক স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণে সচেতনতা সৃষ্টিতে করণীয়

মানসিক ভাবে সুস্থ থাকতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ জরুরী হয়ে পড়ে। কিন্তু সমাজে বিদ্যমান বিভিন্ন কুসংস্কার এবং অসচেতনতা আমাদের এই সেবা গ্রহণের...

দুরন্ত নাকি মানসিক সমস্যায় ভুগছে আপনার সন্তান

শিশুদের প্রতিনিয়ত রাগান্বিত বা আক্রমণাত্মক আচরণ সহ্য করা বাবা-মা অথবা শিক্ষক কারও জন্যই স্বাভাবিক বা সুখকর অভিজ্ঞতা নয়। তাদের এই আবেগের বহি:প্রকাশ যদি বাড়ির...

নিজের যত্নে জরুরি বিষয়াবলী

নিজের নিয়ন্ত্রণ, উদ্যোগ ও ইচ্ছা প্রসূত হয়ে শরীরের যত্ন নেয়াকে সেলফ কেয়ার বা নিজের যত্ন নেয়া বলে। মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে হলে আগে নিজের...