মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home মোবাইল ফোনের আসক্তি কমাতে যা করতে পারেন

মোবাইল ফোনের আসক্তি কমাতে যা করতে পারেন

মোবাইল ফোনের ব্যবহারের জন্য মানুষ আজকাল মানুষ থেকেই অনেক দূরে সরে যাচ্ছে। এমনকি বাবা মার সাথে কথা বলার সুযোগও পায় না আজকাল কার ছেলে-মেয়েরা।

মোবাইল ফোনের এই নেশার কবলে শিশু বা বাড়ির সবচেয়ে প্রৌঢ় সদস্য সহজেই মোবাইল-সর্বস্ব হয়ে উঠছেন। মোবাইলে বুঁদ দুনিয়ায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মুখোমুখি আলাপ-আড্ডার অবসর। আবার এই অমোঘ নেশার দুনিয়ায় যার টেকনোলজি ফোবিয়া আছে, তিনি এতকিছুর সঙ্গে মানিয়ে চলতে পারছেন না বলে তার স্ট্রেস ও উদ্বেগ বাড়ছে৷ কাছের সম্পর্কে কখনও তার আঁচ এসে পড়ে৷ কখনও সেই চাপ এত বেশি হয়ে পড়ছে যে বিশেষজ্ঞের তত্ত্বাবধানে ডি টক্সিং বা আসক্তি নিরাময়ের প্রয়োজন হয়।
মনোবিদদের মতে, প্রথম প্রথম বাড়িতেই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে শুরু করা যেতে পারে এই কাজ। খুব সহজ ক’টা উপায় অবলম্বন করলে বাড়িতেও ডি টক্সিংয়ের প্রাথমিক ধাপগুলো শুরু করতেই পারেন।
ডি টক্সিংয়ের উপায়
১. টেকনোলজির জন্য যদি স্ট্রেস বাড়ে, অশান্তি শুরু হয়, বুঝতে হবে আপনি ব্যাপারটা সামলাতে পারছেন না। তখন কাজের ও ব্যক্তিগত সময়কে আলাদা করে নিন ৷ বন্ধু ও সহকর্মীদের জানান যে একটা সময়ের পর আর আপনাকে ফোনে, মেইলে বা চ্যাটে পাওয়া যাবে না৷
২. সব যোগাযোগ ছিন্ন করতে অসুবিধা হলে আলাদা ফোন রাখুন। জরুরি দরকারে যেখানে যোগাযোগ করা যাবে।
৩. অবসর সময়ে মেইল বা টেক্সট পুরোপুরি এড়ানো সম্ভব না হলে চেষ্টা করুন নির্দিষ্ট সময়ের ব্যবধানে চেক করতে।
৪. ই-বুকের পাশাপাশি বই পড়ার অভ্যাস বজায় রাখুন।
৫. গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা সামনা-সামনি করার চেষ্টা করুন৷ কম সময়ে, ভুল বোঝাবুঝি এড়িয়ে সমাধানে পৌঁছাতে পারবেন।
৬. ব্যক্তিগত সম্পর্কের ক্ষেত্রেও টেক্সটিং বা মেলের চেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো সামনে বসে কথা বলা। এতে স্ট্রেস অনেক কম থাকে। তাই খুব দরকার না পড়লে টেক্সট বা হোয়াটসঅ্যাপ অথবা ফেসবুক ম্যাসেঞ্জার ছেড়ে সামনা-সামনি দেখা করে বলুন।
৭. ডিজিটাল স্ট্রেসের সবচেয়ে বড় কারণ টেকনোলজি ফোবিয়া। সবাই শিখে নিলো আর আপনি পিছিয়ে রইলেন এই দুঃখ থেকে চাপের জন্ম। টেকনোলজি ফোবিয়া কাটাতে চাইলে প্রথমে বুঝে নিন, যে ব্যাপারগুলো কঠিন কিছু নয়। চাইলেই শিখতে পারবেন। কিন্তু কতটুকু চাইবেন বা আদৌ চাইবেন কি না সেটা আপনার ব্যাপার৷ কাজের বা আনন্দের জন্য যতটুকু দরকার ততটুকু শেখাই যথেষ্ট৷ ট্রেন্ডি হওয়ার লোভে এরচেয়ে বেশি কিছু করলে স্ট্রেসই বাড়বে কেবল৷
৮. পরিবার ও নিজের জন্য রাখা সময়ে যেন টান না পড়ে৷ একঘণ্টা, দু’ঘণ্টা, যতটুকু সময়ই রাখছেন তা যেন যথাসম্ভব কম্পিউটার বা মোবাইল ফ্রি থাকে।
৯. নেটে পড়াশোনা করার পাশাপাশি বই পড়াও বজায় রাখুন।
১০. বিছানায় যাওয়ার অন্তত দু’এক ঘণ্টা আগে থেকে নেট, মোবাইল সব বন্ধ করে দিন। অনিদ্রার প্রকোপ কমবে।
১১. সপ্তাহে অন্তত একবেলা টেকনোলজিকে যথাসম্ভব বর্জন করে যা করতে মন চায় তাই করুন। কানে আইপডের তার না গুঁজে শুনুন পাখির ডাক।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

Most Popular

মানসিক উত্তেজনা এবং আবেগ নিয়ন্ত্রণের কিছু সহজ কৌশল

অধিকাংশ সময়ই দেখা যায় আমাদের আবেগ  নিয়ন্ত্রণে থাকেনা, বরং আমরাই আবেগ দ্বারা নিয়ন্ত্রিত হই। অতিরিক্ত আবেগ বা অনিয়ন্ত্রিত আবেগ  আমাদের শারীরিক ও মানসিক ক্ষতির কারণ...

আমার স্বপ্নদোষ অনেক কম হয়

সমস্যা: আমার বয়স ১৮ বছর। আমি কখনো হস্তমৈথুন করিনি।আমার বন্ধুদের কাছে শুনেছি যে ওরা প্রায় সবাই এটা করে। আমিও চেষ্টা করেছি।কিন্তু সুবিধা করতে পারিনি।...

মাদকাসক্তি প্রতিরোধে পরিবারের ভূমিকা

মাদকাসক্তি একটি রোগ। আরো স্পষ্ট করে বললে মাদকাসক্তি একটি মানসিক রোগ বা মস্তিষ্কের রোগ। মাদক সেবন করলে কি ছুসংখ্যক লোক মাদকাসক্ত হয় (আনু. ১০%)।...

বিষণ্ণতা বলতে আপনি যা ভাবছেন সেটা কি আদৌ সঠিক?

অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিষণ্ণতা বিষয়ে সার্বজনীন যে ধারণা প্রচলিত আছে সেটি সঠিক নয়। বিষণ্ণতা শুধু মন খারাপ বা অসুখী জীবনযাপন নয়; বরং আরও বিষদ কিছু। বিশেষজ্ঞদের...

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন