দীর্ঘদিন যাবত সিজোফ্রেনিয়া রোগের চিকিৎসা চলছে

0
389
প্রতিদিনের চিঠি

আমাদের প্রতিদিনের জীবনে ঘটে নানা ঘটনা,দুর্ঘটনা। যা প্রভাব ফেলে আমাদের মনে। সেসবের সমাধান নিয়ে মনের খবর এর বিশেষ আয়োজন ‘প্রতিদিনের চিঠি’ বিভাগ। এই বিভাগে প্রতিদিনই আসছে নানা প্রশ্ন। আমাদের আজকের প্রশ্ন পাঠিয়েছেন – সুমাইয়া ইয়াসমীন  (ছদ্মনাম)-

আস্সালামুআলাইকুম। আমার বয়স ২১ বছর; অনার্স ৩য় বর্ষে উঠবো। আমার ২জন ভাই-বোন আছে, যাদের মধ্যে আমার বোন সবার বড়। দীর্ঘদিন যাবত তার সিজোফ্রেনিয়া রোগের চিকিৎসা চলছে। তবুও তার মধ্যে বিশেষ কোনো পরিবর্তন দেখা যাচ্ছেনা। সে রাত ২টা/৩টায় না ঘুমিয়ে কথা বলে নিজে নিজে, প্রায়ই সে বকাবকি-কান্নাকাটি করে এমনভাবে যেন কোনো অদৃশ্য কেউ তার সামনে আছে; সে কায়িকশ্রমের প্রতি উদাসীন যার কারণে তার স্থূলতা সমস্যা বাড়ছে, তাকে কোনোভাবেই বাইরে হাটতে পর্যন্ত নেয়া যায় না। তার ওষুধপত্র পরিবর্তিত হয়েছে বহু বার।
বর্তমানে নিম্নোক্ত ঔষধগুলো চলছে-
1. brexi 1mg (tab) 1*0*2
2. hexinor 5mg (tab) 1*0*1
3. Slipam 30mg (cap) 0*0*1
4. Opton 20mg (cap) (empty stomach) 1*0*1
এবং ২ সপ্তাহ অন্তর clopixol depot 200 mg injection ।

এখানে উল্লেখ্য যে- আমার বড় বোন এর ছোটবেলায় সংঘটিত কিছু ঘটনা-
‍‍‌‌‌‌‌‌‌‌১. মাথায় বড় কাঁচের বোতল পড়েছিল
২. পুকুরে ডুবে গিয়েছিলো
৩. দাঁতের চিকিৎসায় ভুল injection দেওয়া হয়েছিল

আপনাদের পরামর্শ চাচ্ছি।

তোমাকে প্রথমেই ধন্যবাদ, তোমার বোনের রোগটির বিষয়ে নিজে চিন্তা করার জন্য। দায়িত্ব নিয়ে জানতে চাওয়ার জন্য এবং আমাদেরকে প্রশ্ন করার জন্য। আসলে সিজোফ্রেনিয়া এমন একটা রোগ যেখানে পরিবারের মানুষজনের বেশ কিছু কাজ করার আছে। তাদের অনেক দায়িত্ব নেয়ার আছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রে সেই দায়িত্ব নেয়ার কেউ থাকেনা, বা দায়িত্ব নিতে পারেনা বা দায়িত্ব নিতে চায় না। চিকিৎসক যে অংশটুকুর দায়িত্ব পালন করবে সেটা অনেকটা স্কুলের শিক্ষকদের মতো, গাইড লাইন দিবে কি করতে হবে, কখন করতে হবে, এমন। পরিবারই সেটা বুঝে সঠিক দায়িত্বটি পালন করবেন। কোন ছা্ত্রের জন্য কি করতে হবে সেটা যেমন ভিন্ন, কোন রোগের চিকিৎসা চালানোর জন্য কি করতে হবে সেটাই ভিন্ন। বোনের বিষয়ে তোমার আগ্রহের জন্য তোমাকে আবারও ধন্যবাদ।

সিজোফ্রেনিয়া এমন একটি রোগ যেটি অনেকক্ষেত্রেই দীর্ঘমেয়াদী হয়। চিকিৎসাও দীর্ঘদিন যাবত চালিয়ে যেতে হয়। সঠিক চিকিৎসায় আজকাল এই রোগিরা অনেক ভালো থাকে। পরিবারের মানুষজন যদি হাল না ছেড়ে দেয় এবং চিকিৎসা চালিয়ে যায় তবে অনেকে বেশ ভালো থাকে। আমারই অনেক রোগী আছে যারা চাকরি করছে, টিচার হিসেবেও আছে। তবে সবাই এতোটা ভালো নেই । তোমার বোনের যে চিকিৎসা চলছে সেটা খারাপ না। ডোজ ঠিক করে নিলে ভালো হতে পারে। ব্রেক্সি একটি নতুন ওষুধ, পৃথিবীতেই এটি নুতন। বাংলাদেশেও মাত্র এসেছে। আশা করি ভালো ফল দিবে। এই ওষুধটার সাইড ইফেক্ট কম। তোমাকে অনুরোধ করবো চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি সিজোফ্রেনিয়া বিষয়ে ভালো করে জানতে পড়তে পারেন। মনের খবরেই এ নিয়ে অনেক লেখা আছে। ভালোথ কো, তোমার জন্য শুভকামনা। প্রয়োজনে যোগাযোগ করবে।

ইতি,
প্রফেসর ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব

চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক – মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
সেকশন মেম্বার – মাস মিডিয়া এন্ড মেন্টাল হেলথ সেকশন অব ‘ওয়ার্ল্ড সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন’।
কোঅর্ডিনেটর – সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি), মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
সাবেক মেন্টাল স্কিল কনসাল্টেন্ট – বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্রিকেট টিম।
সম্পাদক – মনের খবর।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here