শৈশবে আমি এবিউজের শিকার হই

0
331
ফেইল করার ভয়ে পরীক্ষা দেওয়া বন্ধ করে দিই

আমাদের প্রতিদিনের জীবনে ঘটে নানা ঘটনা,দুর্ঘটনা। যা প্রভাব ফেলে আমাদের মনে। সেসবের সমাধান নিয়ে মনের খবর এর বিশেষ আয়োজন ‘প্রতিদিনের চিঠি’ বিভাগ। এই বিভাগে প্রতিদিনই আসছে নানা প্রশ্ন। আমাদের আজকের প্রশ্ন পাঠিয়েছেন – পারভিন আহমেদ (ছদ্মনাম)-

শৈশবে আমি এবিউজের শিকার হই। আমার বাবা উনার অর্জিত সকল সম্পদ জীবিত থাকা অবস্থায় আমার ভাইদের নামে লিখে দেন। আমাদের নিরাপওার বিষয়ে উনি ছিলেন সম্পুর্ণ উদাসীন। বাবা আমার মায়ের বিষয়েও উদাসীন ছিলেন। আমার চাচার দ্বারা মা আক্রান্ত হয়েছে, আমি দেখে ফেলি। এই সব জিনিস আমি ইরেজার দিয়ে মুছে ফেলতে চাই। আমার মাথার ভিতর সবসময় দপদপ করতে থাকে। আমি মেডিটেশন করে চেষ্টা করেছি, লাভ হয় নাই, এখন শুধু মরে যেতে ইচ্ছে করে, কোনো কিছু ভালো লাগে না।

মেডিটেশন সব সমস্যার সমাধান নয়। এটি অবশ্যই অনেক ক্ষেত্রে কার্যকরী ও সহায়ক। আপনাকে আপনার সমস্যা দূর করার  জন্য সঠিক চিকিৎসাই নিতে হবে। কথা শুনে মনে হচ্ছে, আপনি বিষণ্ণতায় ভুগছেন। সেই সাথে অতীতের জমা হওয়া কষ্টগুলোও আপনার মনে জমা হয়ে আছে। আপনি বিষণ্ণতার চিকিৎসা নিলেই ভালো করবেন। একটা কথা মনে রাখবেন, পৃথিবীতে মানুষ কোনো ঘটনাই ভুলতে পারেনা। অনেকে বলেন, ওই ঘটনা যদি ভুলে যাওয়া যেতো বা ওটা যদি আর মনে না থাকতো। কোনটাই সম্ভব নয়। আসল কথা এসব থাকবেই, ঘটবেই আবার মনের কোনো জমাও হবে। তারপরও সামনে যাবার পথ ধরেই হাটতেই হবে।  কতটুকু সঠিক ভাবে চলতে পারি তার জন্যই এসব চিকিৎসা। বোঝা গেলো না আপনি আগে চিকিৎসা নিয়েছেন কিনা। তবে আপাতত টেবলেট মিরাপ্রো ৭.৫ মিগ্রা, রাতে একটা খেতে পারেন। ভালো থাকবেন।

ইতি,
প্রফেসর ডা. সালাহ্উদ্দিন কাউসার বিপ্লব

চেয়ারম্যান ও অধ্যাপক – মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
সেকশন মেম্বার – মাস মিডিয়া এন্ড মেন্টাল হেলথ সেকশন অব ‘ওয়ার্ল্ড সাইকিয়াট্রিক এসোসিয়েশন’।
কোঅর্ডিনেটর – সাইকিয়াট্রিক সেক্স ক্লিনিক (পিএসসি), মনোরোগবিদ্যা বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়।
সাবেক মেন্টাল স্কিল কনসাল্টেন্ট – বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্রিকেট টিম।
সম্পাদক – মনের খবর। চেম্বার তথ্য – ক্লিক করুন

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here