অনিদ্রা সম্পর্কেও প্রভাব ফেলে

0
49
সুস্থ থাকার জন্য কত ঘণ্টা ঘুমাবেন

সম্প্রতি ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রায় ভোগা ছয় হাজার ৮০০ রোগীর পারস্পরিক সম্পর্কের ওপর সমীক্ষা চালিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের মেন্টাল হেলথ ফাউন্ডেশনের গবেষকরা বলেন, স্বল্প ঘুমের ব্যক্তির মধ্যে হতাশা কাজ করে বেশি। এর প্রভাবে অনেক সময় প্রিয়জনের সঙ্গে সম্পর্কও ভেঙে যেতে পারে।

পর্যাপ্ত ঘুমের অভাবে এদের হৃদযন্ত্রে সমস্যার পাশাপাশি কাজেও মনোযোগ থাকে না। কমে যায় রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা। এছাড়া, স্বামী-স্ত্রী বা প্রেমিক-প্রেমিকার সম্পর্কের মধ্যে দূরত্ব তৈরি করে, এমনকি সম্পর্ক ভেঙেও যেতে পারে। সর্বোপরি স্বল্প ঘুমের ব্যক্তিটির মধ্যে মানসিক রোগ দেখা দিতে পারে।

সমীক্ষায় দেখা যায়, ইনসোমনিয়া মস্তিষ্কের স্মৃতি শক্তি লোপ করে। ফলে, ইনসোমনিয়া রোগীর মস্তিষ্কের কার্যকারিতা স্বাভাবিক লোকের মস্তিষ্কের চাইতে অনেক কম।

গবেষণা প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে পরামর্শ দিয়ে বলা হয়, অপর্যাপ্ত ঘুম শরীর, মন, দৈনন্দিন জীবন-ধারা সবকিছুর ওপরই মারাত্মক প্রভাব ফেলে। তাই ইনসোমনিয়া রোগের কারণ খুঁজে বের করে এর সমাধান করতে হবে।

এজন্য প্রথমে ওষুধ ছাড়াই চিকিৎসা করাতে হবে রোগীকে। যেমন, নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমাতে যাওয়া, ঘুমানোর অন্তত আট ঘণ্টা আগে উদ্দীপক জাতীয় (কাফেইন) কোনো পানীয় পান না করা, প্রতিদিন কিছুক্ষণের জন্য যোগ-ব্যায়াম করা, ঘুমাতে যাওয়ার আগে ব্যায়াম না করা এবং ঘুমের জন্য একটি সুন্দর নীরব পরিবেশ তৈরি করা।

এছাড়া, মানসিক চাপ থাকলে সেটাও কমিয়ে ফেলার চেষ্টা করতে হবে।

মনের খবর মাসিক ম্যাগাজিন ক্রয়ের বিশেষ অফার

স্বজনহারাদের জন্য মানসিক স্বাস্থ্য পেতে দেখুন: কথা বলো কথা বলি
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও দেখুন: সুস্থ থাকুন মনে প্রাণে

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here