মানসিক রোগীর ডায়েরি

0
19
মানসিক রোগীর ডায়েরি
মানসিক রোগীর ডায়েরি

এক.
কামাল (ছদ্মনাম) হন্তদন্ত হয়ে চেম্বারে ঢুকেই বললো, স্যার, আমায় মাফ করবেন।
খানিকটা কৌতুহলী হয়ে বললাম, কি ব্যাপার কেনো?
:স্যার আমি বিয়ে করে ফেলেছি, আজ তিনদিন হলো।
:মানে?
:জ্বী স্যার
:জ্বী স্যার
:তুমি তোমার মা দুজনেই জিগ্যেস করেছিলে, বিয়ের প্রস্তুতি নেয়া যায় কিনা?
:জ্বী স্যার
:কি বলেছিলাম?
:আপনি বলেছিলেন, খবরদার এখন বিয়ে নয়।
:তাহলে?
:স্যার, একটি দূর্ঘটনায় পড়ে সেদিনই বিয়ে করতে হয়েছে।
:মানে?
:স্যার, আগে আপনার পা’টা দেন। আগে আপনার পা ছুয়ে সালামটা করে নেই৷ আপনি আমার লক্ষী। আপনার চেম্বার থেকে বের হয়ে :ঔষধ নিয়ে বাড়ি যাই। যেই না এক ডোজ ওষুধ মুখে দেই তারপর পরই আমাকে শুভ কাজ করতে হয়েছে….। আপনি লক্ষী আমার :স্যার। প্লিজ পা ছুই…?
:বুঝলাম না, কি সব আবোল তাবোল বলছো? ঘটনা কি, কি হয়েছে? বিয়ে কেনো করতে গেলে?
স্যার, প্রথম বিয়ে ডিভোর্স হবার পর থেকে আমি হন্য হয়ে ঘুরছিলাম বিয়ের জন্যে। কিন্তু আমার নাকি মাথায় সমস্যা। এজন্যই ডিভোর্স হয়েছে। তাই কোন মেয়ে, বা অভিভাবক রাজী হয়না। তিনদিন আগে সন্ধ্যায় ফোনটা আসে। মেয়ের বাবা ফোন করে বলে, তোমাকে মেয়ে দিতে রাজী আছি। তবে শর্ত আজ রাতেই বিয়ে হবে৷ এই মেয়েকে আমার আম্মা কয়েকদিন আগে দেখেছিলেন। কিন্তু তারা আমার সম্পর্কে খবর নিয়ে ‘না’ করে দিয়েছিলো…।
:তা হঠাৎ আবার রাজী হলো কেনো, তাও আবার শর্ত দিয়ে একরাতের মধ্যেই কাজ সারতে হবে কেনো? রহস্য কি?
:আসলে স্যার পরের দিন মেয়ের বিয়ে ছিলো। কিন্তু যৌতুক বিষয়ক মনমালিন্যে বিয়ের আগের দিন বিকালে বিয়েটা ভেঙে যায়। বিয়ের সব আয়োজন সম্পন্ন, গরু মুরগী, খাসী সব চুলোয় বসানোর প্রস্তুত। কিন্তু এই মুহুর্তে কোন মেয়ের বিয়ে ভেঙে যাওয়া…, মানে কি বুঝেছেন!!? তাই কি হবে না হবে, উপায়ান্তর না দেখে তারা প্রথমে আমাকেই ফোন দেন, এবং শর্ত দেয়। আমিতো ফোন আর শর্ত শুনে পেয়ে লাফাতে থাকি। লটারি লাগলে মানুষ যেমন লাফায়। তারপর মা আর দুলাভাই কে বলি। তারা রাজী ছিলো না। কিন্তু আমারতো আবার খুব চড়লে আমি দা নিয়ে ঘুরাঘুরি করি। তাই মা আর দুলাভাই কোন কথা বাড়ায় না।
:মেয়ের সাথে কথা হয়েছিলো?
:জ্বী স্যার। মেয়ের বাবা ফোন দেবার একটু পরে মেয়েও ফোন দেয়। সে বলে, কাল আমার বিয়ে ছিলো। কিন্তু আজ ভেঙে গেছে। আমি আপনাকে বিয়ে করতে রাজী আছি এক শর্তে। যা করার আজ রাতেই করতে হবে।
আমি বললাম, আমার মাথা আউলা ঝাউলা। ডাক্তারের ও নিষিধ। আজই ডাক্তার দেখিয়েছি।
সে বলে, ওতোসব বুঝিনা। যার সাথে আমার কাল বিয়ে সে আজ বিকেলে একটা হোন্ডা চেয়েছে। যৌতুক লোভী ছেলে থেকে ‘ মাথা আউলা ঝাউলা’ পাগল ছেলে ভালো। তাছাড়া আপনি পুরো পাগল না। একটু সাদাসিধা মানুষ। আপনার মা’ ও খুব ভালো। আমাকে যেদিন দেখতে এসেছিলেন সেদিন আপনার আম্মা বার বার বলেছিলেন, ‘আমরা শুধু মেয়েটাকে চাই….”। আমার সে কথা মনে আছে।
‘ব্যাস স্যার। আমি আর নিজেকে সামলাতে পারিনি। তৎক্ষনাৎ দুলাভাই, বোন, মা আর কাজী সাহেব সহ একটা গাড়ি ভাড়া করে সোজা মেয়ের বাড়ি যাই। শুভ কাজ সারি। পরের দিন আরো কিছু বন্ধুবান্ধব নিয়ে যাই। খেয়ে দেয়ে বউ নিয়ে চলে আসি।
কামালের কথাগুলো গল্পের মতো লাগলো। সাদাসিধে ছেলে। দুবাই থাকে। বছর দেড়/দুই পর হঠাৎ করে মাথাটা তার আউলা ঝাউলা হয়ে যায়। ২/৩ মাস থাকে ঔষধ খেলে ঠিক হয়। আবার বছর গেলেই এমন। এভাবে চলছিলো গত আট দশ বছর।
বছর কয়েক আগে মাঝখানে তাকে বিয়ে করানো। সবাই ভেবেছিলেন বিয়ে করলে তার সমস্যার সমাধান হবে। কিন্তু একমাস পরে সে বউ চলে গিয়েছে। তারপর আর বিয়ে করেনি।
গেলো তিনদিন আগে তাকে তার মা’ আমার চেম্বারে নিয়ে আসছিলেন। পুরোনো সমস্যাটা আবার দেখা দিয়েছে। ভাংচুর, উৎপাত, রাগারাগি, বেশী বেশী কথা বলা, বড় বড় কথা বলা ইত্যাদি আবার দেখা দিয়েছে।
বাইপোলার ম্যানিক ডিসওর্ডার এর রোগী কামাল। বাইপোলারের সব রোগীর হিস্ট্রি প্রায় একই রকম। বছরের একটা সময় ভালো, আবার খারাপ। যখন ভালো তখন খুব ভালো। যখন খারাপ তো খারাপ। ভালো খারাপের সংমিশ্রণ থাকে তাই অনেক সময় আত্মীয় স্বজন বিষয়টি বুঝতে পারেন না।
কামাল আকুতি মিনতি করে, ‘স্যার কি করবো যা করার করে ফেলেছি। ঝুঁকের মাথায় করে ফেলেছ। এখন বউ রাখতে পারছিনা। সে আজ ধমক আর হুমকি দিয়ে পাঠিয়েছে আপনার কাছে। আমার ব্রেইন, আমার শরীর ঠিক ঠাক না করে দিলে সে বাপের বাড়ি চলে যাবে। আর স্যার সে যদি বাপের বাড়ি চলে যায় তাহলে আমি আমার গলায় দা চালিয়ে দিবো।
দুই.
কামালের এমুহুর্তে বিয়ে করাটা একদম ঠিক হয়নি। এখন তার বিয়েটা টিকিয়ে রাখা যে কোন সাইকিয়াট্রিস্ট পক্ষে একটা বড় চ্যালেঞ্জ। এন্টি সাইকোটিক, মোড স্ট্যাবিলাইজার এসব ড্রাগ গুলোর সেক্সুয়াল ডিসফাংশন সাইড ইফেক্ট আছে। খেলে সমস্যা, না খেলেও সমস্যা।
নতুন বউ এর হুমকি ধামকিতে মনে হলো কামাল এক্ষুনি চেম্বারে হাউমাউ করে কান্নাকাটি শুরু করে দিবে।
তাকে বললাম, ‘কি আর করা। শুভ কাজ যখন করেই ফেলেছো যাও তোমার বউ, মা দুলাভাই সবাই সহ আসো। ওদেরকে কিছু বিষয় বুঝিয়ে বলতে হবে। নিরাশ হয়োনা’
মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ে চিকিৎসকের সরাসরি পরামর্শ পেতে দেখুন: মনের খবর ব্লগ
করোনায় মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক টেলিসেবা পেতে দেখুন: সার্বক্ষণিক যোগাযোগ
করোনা বিষয়ে সর্বশেষ তথ্য ও নির্দেশনা পেতে দেখুন: করোনা ইনফো
করোনায় সচেতনতা বিষয়ক মনের খবর এর ভিডিও বার্তা দেখুন: সুস্থ থাকুন সর্তক থাকুন


 


প্রকাশিত মতামত লেখকের একান্তই নিজস্ব। মনের খবরের সম্পাদকীয় নীতি বা মতের সঙ্গে লেখকের মতামতের অমিল থাকতেই পারে। তাই মনের খবরে প্রকাশিত কলামের বিষয়বস্তু বা এর যথার্থতা বা অন্য যেকোন ধরনের দায়  সর্ম্পূণই লেখকের।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here