মানসিক স্বাস্থ্যের সবকিছু ENGLISH

Home করোনায় মনের সুরক্ষা টিপস্ উদ্বেগ কমাতে মনের যত্ন নিন

উদ্বেগ কমাতে মনের যত্ন নিন

এই মুহূর্তে আমরা সবাই একটি আতঙ্কজনক সময় পার করছি। করোনা ভাইরাস সারা বিশ্বব্যাপী মহামারী আকার ধারণ করেছে। রোগের প্রাদুর্ভাব কমানোর তাগিদে ইতোমধ্যে বিশ্বের বিভিন্ন অঞ্চলে বাধ্যতামূলক অবরুদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। আমাদের দেশেও অনেককে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার পরামর্শ দেয়া হয়েছে এবং আমাদের প্রত্যেকেরই উচিত খুব বেশি প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে না বের হওয়া, জনসমাগমগুলো এড়িয়ে চলা।

এমতাবস্থায় আমাদের মধ্যে নানা মানসিক চাপ ও উদ্বেগ তৈরি হওয়া খুবই স্বাভাবিক। এমন একটি পরিস্থিতিতে নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ এই দুর্যোগ মোকাবিলার জন্য আমাদের মানসিক  শক্তি ও সুস্থতা বজায় রাখতে হবে।

এই পরিস্থিতিতে নিজের মানসিক স্বাস্থ্যের যত্নের জন্য নিম্নলিখিত পদক্ষেপ গ্রহণ করুন:

  • প্রথমেই এই পরিস্থিতি নিয়ে আপনার মনের মধ্যে কি কি চিন্তা আসছে এবং সেগুলোর পরিপ্রেক্ষিতে কি ধরনের অনুভূতির সৃষ্টি হচ্ছে তা উপলব্ধি করুন। হতে পারে আপনি অধিক দুশ্চিন্তা করছেন, আপনার ভীষণ কষ্ট হচ্ছে কিংবা আপনি অনেক ভয় পাচ্ছেন, যেটাই হোক না কেন এইগুলো আপনার নিজের অনুভূতি এবং এই সময়টাতে এগুলো হওয়া খুব স্বাভাবিক, এই বিষয়টি মেনে নিন। ‘কেন আমার এত অস্থির লাগছে, এরকম অনুভব হওয়া ঠিক না’– এই ধরনের বিচার-বিশ্লেষণে যাবেন না এবং অন্যের উদ্বেগ নিয়েও বিচার-বিশ্লেষণ ও হাসি-তামাশা করা থেকে বিরত থাকুন।

রোগের আপডেট সম্পর্কে অবহিত থাকুন, সংবাদ দেখুন, পড়ুন ও শুনুন। তবে গুজব সম্পর্কে সতর্ক থাকতে হবে, বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়ার ক্ষেত্রে। সোশ্যাল মিডিয়ায় যেকোনো সংবাদ শেয়ার করার ব্যাপারে সতর্ক থাকুন। যেকোনো সংবাদের উৎস সম্পর্কে সচেতন থাকুন। বারে বারে আপডেট চেক করা ও করোনা ভাইরাস সম্পর্কিত সংবাদ অতিরিক্ত দেখা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন, এরফলে আপনার মধ্যে আরো বেশি উদ্বেগ তৈরি হতে পারে।

এই সময়টাতে যদিও আমরা শারীরিকভাবে অন্যদের থেকে নিজেকে বিচ্ছিন্ন রাখব তবে প্রিয় মানুষদের সাথে যোগাযোগ বজায় রাখুন। ফোন কলে, ভিডিও চ্যাটিং এর মাধ্যমে খোঁজখবর রাখুন কাছের মানুষগুলোর। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এক্ষেত্রে ভালো ভূমিকা রাখতে পারে।  আপনার অনুভূতি ও অভিজ্ঞতাগুলো শেয়ার করুন এতে আপনার মন ভালো থাকবে ও আপনি অন্যদের সাথে একাত্ম অনুভব করবেন।
নিজের শরীরের প্রতি মনযোগী হউন। সময় মতো খাওয়া-দাওয়া ও হালকা ব্যায়াম করার চেষ্টা করুন। এতে আপনার শরীরে ক্লান্তি ও অবসাদ কম আসবে।

কিছুটা সময় বের করে নিন একান্ত কিছু সময় কাটানোর জন্য। এই সময়টাতে যা করলে আপনার মাঝে ভালো অনুভূতির সৃষ্টি হয় তা করুন। যেমন: কিছুক্ষণ বারান্দায় সময় কাটানো, বই পড়া কিংবা গান শোনা অর্থাৎ আপনার যা করতে ভালো লাগে, যা করলে কিছু সময় দুশ্চিন্তা থেকে দূরে থাকা যায় তাই করুন।
মেডিটেশন ও রিলাক্সেশন অনুশীলন করুন। মাইন্ডফুলনেস মেডিটেশন ও শ্বাস-প্রশ্বাসের ব্যায়াম (Breathing exercise) উদ্বেগ কমাতে সাহায্য করে। তাই নিয়মিত এইগুলো অনুশীলন করুন।

মনে রাখবেন আমরা সবাই এখন খুব কঠিন একটি সময় পার করছি তবে এই সময়টা চিরস্থায়ী নয়। কিছুদিন পর যখন  এই ভয়াবহতা থাকবে না তখন আমরা আবার আগের মত জীবনযাপন করতে পারবো, শুধুমাত্র কিছুদিন আমাদের মনে সাহস ও শক্তি নিয়ে এই দুর্যোগে লড়াই করে যেতে হবে।

লেখক: বিলকিস খানম, সাইকোলজিস্ট, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

আমাদের সাথেই থাকুন

87,455FansLike
55FollowersFollow
62FollowersFollow
250SubscribersSubscribe

প্রিন্ট পিডিএফ পেতে - ক্লিক করুন

Most Popular

মাদকাসক্ত ব্যক্তি করোনা আক্রান্ত হওয়ার অধিকতর ঝুঁকিতে

কোভিড-১৯ মহামারী এখন সমস্ত পৃথিবীব্যাপী ছড়িয়ে পড়েছে। যে কেউ এই রোগে আক্রান্ত হতে পারে। তবে গবেষণা বলছে, মাদকাসক্ত ব্যক্তিদের মাঝে কোভিড-১৯ আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি...

মানসিক স্বাস্থ্য সেবা গ্রহণে সচেতনতা সৃষ্টিতে করণীয়

মানসিক ভাবে সুস্থ থাকতে কিছু কিছু ক্ষেত্রে চিকিৎসা সেবা গ্রহণ জরুরী হয়ে পড়ে। কিন্তু সমাজে বিদ্যমান বিভিন্ন কুসংস্কার এবং অসচেতনতা আমাদের এই সেবা গ্রহণের...

দুরন্ত নাকি মানসিক সমস্যায় ভুগছে আপনার সন্তান

শিশুদের প্রতিনিয়ত রাগান্বিত বা আক্রমণাত্মক আচরণ সহ্য করা বাবা-মা অথবা শিক্ষক কারও জন্যই স্বাভাবিক বা সুখকর অভিজ্ঞতা নয়। তাদের এই আবেগের বহি:প্রকাশ যদি বাড়ির...

নিজের যত্নে জরুরি বিষয়াবলী

নিজের নিয়ন্ত্রণ, উদ্যোগ ও ইচ্ছা প্রসূত হয়ে শরীরের যত্ন নেয়াকে সেলফ কেয়ার বা নিজের যত্ন নেয়া বলে। মানসিক স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে হলে আগে নিজের...